মেইন ম্যেনু

কাপড় ধোয়ার এই নিয়মগুলো আপনি মেনে চলছেন তো?

শিরোনাম দেখে ভ্রু কুঁচকে গেছে, ভাবছেন কাপড় ধোয়ায় আবার নিয়ম কিসের? কম বেশি সবাইকেই কাপড় ধুতে হয়। এই কাপড় ধোয়ার মধ্যে রয়েছে কিছু নিয়ম। আপনি নিজের অজান্তেই কাপড় ধুতে গিয়ে কাপড়ের সুতা না হয় রং নষ্ট করে ফেলছেন। আবার অনেক সময় কাপড় ছিঁড়ে যায় অসাবধানতার কারণে। একটু সতর্কতা আপনার কাপড়কে রাখতে পারে ভাল। কাপড় ধোয়ার টুকিটাকি বিষয় নিয়ে আজকের এই ফিচার।

১। কাপড়ের উপর সরাসরি ডিটারজেন্ট ব্যবহার করবেন না। প্রথমে কাপড় তারপর পানি এবং সবার শেষে ডিটারজেন্ট দিন। যদি ব্লিচ ব্যবহার করেন তবে প্রথমে পানি, তারপর কাপড় এবং সবশেষে ব্লিচিং ডিটারজেন্ট দিয়ে দিবেন।

২। অতিরিক্ত ময়লা কাপড়ের সঙ্গে অন্য কাপড় একসঙ্গে ভেজাবেন না। এতে অন্য কাপড়ে দাগ লাগার সম্ভাবনা থাকে।

৩। ডেনিম জাতীয় কাপড় যেমন জিন্সের প্যান্ট, শার্ট আলাদা ধোয়াই ভালো।

৪। সাদা কাপড় অন্যান্য কাপড় থেকে আলাদা ভেজান। এতে করে অন্য কাপড়ের রং সাদা কাপড়ে লাগার সম্ভাবনা থাকবে না।

৫। সাদা কাপড়ের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে আধা কাপ ভিনেগারের সাথে দুই টেবিল চামচ বেকিং সোডা দিয়ে মেশান। এই মিশ্রণটি দিয়ে কাপড় ধুয়ে ফেলুন।

৬। উলের কাপড়গুলো গরম পানিতে ধোবেন না। খুব বেশিক্ষণ ডিটারজেন্ট পাউডারে ভিজিয়ে রাখবেন না, এতে উল নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

৭। ভারী কাপড় যেমন জিন্স, শার্ট, প্যান্ট ইত্যাদি কাপড় উল্টো করে তারপর ধুয়ে ফেলুন। এতে অভ্যন্তরীণ ময়লা ভালভাবে পরিষ্কার হবে।

৮। কাপড় বেশিক্ষণ দড়িতে ঝুলিয়ে রাখলে কাপড়ের আকার নষ্ট হয়ে যায়।

৯। কোনো কাপড় প্রথমবার ধোয়ার সময় অবশ্যই আলাদাভাবে পরীক্ষা করে নেবেন। কারণ নতুন কাপড় থেকে রং ওঠার আশঙ্কা থাকে। এ ক্ষেত্র পুরনো কোনো কাপড়ের সঙ্গে ধুয়ে দেখতে পারেন অন্য কাপড় নষ্ট হয় কি না।

১০। ওয়াশিং মেশিনের ফিল্টার বছরে একবার অন্তত পরিষ্কার করবেন এবং ডিটারজেন্ট পাউডারে ভিজিয়ে ভালোমতো ব্রাশ দিয়ে পরিষ্কার করে শুকিয়ে নিবেন ফিল্টার।

১১। যে কোন কাপড় ধুতে দেওয়ার আগে এর ট্যাগ চেক করে নিন। বিশেষ করে সেনসিটিভ কাপড়ের ক্ষেত্রে এটি বেশি প্রযোজ্য। ট্যাগে কাপড় ধোয়ার নিয়ম উল্লেখ থাকে।