মেইন ম্যেনু

কী বলবেন অর্থমন্ত্রী?

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে আট কোটি ডলার চুরি এবং দীর্ঘ এক মাস পর তা জানানোর ঘটনায় ক্ষুব্ধ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আজ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হচ্ছেন।

গতকাল সোমবার বিকালে গভর্নর আতিউরকে অর্থমন্ত্রী সচিবালয়ে ডাকলেও দিল্লি থেকে হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে নেমে গভর্নর সোজা তার গুলশানের বাসায় চলে যান। পরে তিনি মন্ত্রীকে ফোন করে শরীর খারাপের কথা জানিয়ে দেন। এর পরই অর্থমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলন ডাকেন।

গতকাল সোমবার রাতে গভর্নর আতিউর রহমান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। অর্থমন্ত্রী অনেকটা তড়িঘড়ি করেই সংবাদ সম্মেলনটি ডাকেন। এর পর থেকেই জল্পনা শুরু হয় যে আজ মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে কি বার্তা দেবেন অর্থমন্ত্রী। গতকাল বিকালে অর্থমন্ত্রী সাবেক অর্থসচিব ও বিশ্বব্যাংকের সাবেক বিকল্প নির্বাহী পরিচালক ড. তারেকের সঙ্গে বৈঠক করেন। এর পর থেকে অন লাইন মিডিয়ার খবর ছড়িয়ে পরে যে তারেকই হচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরবর্তী গভর্নর। তবে গভর্নর হিসাবে তারেকের নামটি অনেক আগে থেকেই আলোচনায় ছিল।

একটি সূত্র জানিয়েছে, গভর্নর আতিউরের পদ যে নড়বড়ে হয়ে গেছে তা বুঝেই আতিউর গতকাল বিকালে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেননি। অর্থমন্ত্রীকে এড়িয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছতে ব্যর্থ হন বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

পত্রপত্রিকার খবর হচ্ছে- গোটা বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীও গভর্নরের ওপর ক্ষুব্ধ। সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যখন গভর্নরের ব্যাপারে অর্থমন্ত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করেন তখন প্রধানমন্ত্রীও চুপ ছিলেন।

মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘এ ঘটনায় সরকার ক্ষুব্ধ। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান এখন বিদেশ সফরে রয়েছেন। আমি তার দেশে ফেরার অপেক্ষায় রয়েছি। তিনি দেশে ফিরলেই আমি তার সঙ্গে কথা বলবো এবং এর পরই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

গভর্নরের নাগাল না পেয়ে রাতে সচিবালয় ছাড়ার সময় অর্থমন্ত্রীর কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যা বলার কাল বলবো’।

সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী কি বলতে পারেন-এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্যদকে ঢেলে সাজানোর বিষয়টি থাকতে পারে। বাংলাদেশ ব্যাংকে নতুন গভর্নর আসছে কি না-এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান। তবে গভর্নর আতিউর কি পদত্যাগ করছেন? এমন প্রশ্নই ঘুরে ফিরে উচ্চারিত হচ্ছিল কাল বিকালে সচিবালয়ে বিশেষ করে অর্থমন্ত্রণালয়ে। তবে যাই হোক আজ কিছু যে একটা হবে তা বুঝা যাচ্ছে। ঠিক কি সিদ্ধান্ত আসবে সে জন্য বেলা ১১টা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।