মেইন ম্যেনু

কুড়িগ্রামে বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীরা ভোটাধিকারের সুযোগ পাচ্ছেন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের বিলুপ্ত ছিটমহলের অধিবাসীরা ভোটাধিকারের সুযোগ পাচ্ছেন। আগামি ৩১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের কোন নির্বাচনে তারা ভোট দিতে যাচ্ছেন। জেলার ১১টি বিলুপ্ত ছিটমহলের ২ হাজার ৯৯৮ জন ভোটার সরাসরি এই সুযোগ পাবে। তফশীল ঘোষণার পর থেকেই ছিটমহলগুলোতে চলছে নির্বাচনী হাওয়া। ছিটবাসীরাও প্রার্থীতা করছেন বলে জানা গেছে।

জেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানা গেছে, ফুলবাড়ী উপজেলার ফুলবাড়ী, শিমুলবাড়ি ও ভাঙামোড় ইউনিয়ন, ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ভুরুঙ্গামারী, পাথরডুবি ও শিলখুঁড়ি ইউনিয়নে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আগামী ৬ অক্টোবর মনোনয়নপত্র জমা, ৭ অক্টোবর বাছাই, ৮ অক্টোবর প্রতীক বরাদ্দকরা হবে। প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৪ অক্টোবর। এর আগে ৫ ধাপে দেশব্যাপী ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও ভোটার তালিকা তৈরী না হওয়ায় ছিটমহল সংলগ্ন ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি।
গত ১০-১৬ জুলাই বিলুপ্ত ছিটমহলে ভোটার তালিকা প্রণয়নের জন্য তথ্য সংগ্রহ করা হয়। আগামী ৩ অক্টোবর ভোটারদের মধ্যে ভোটার আইডি কার্ড বা স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হবে। কুড়িগ্রামের ১১টি বিলুপ্ত ছিটমহলে মোট ভোটার সংখ্যা ২ হাজার ৯৯৮। এর মধ্যে ফুলবাড়ী উপজেলার দাসিয়ারছড়ায় ২ হাজার ৫৬২ ও ভূরুঙ্গামারী উপজেলার ৪৩৬ জন।

জানা যায়, সারা দেশে প্রথম ধাপ থেকে ৬ষ্ঠ ধাপ পর্যন্ত বিভিন্ন জটিলতার কারণে বাদ পড়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য গত ২৬ সেপ্টেম্বর তফসিল ঘোষণা করা হয়। সারা দেশে বাদ পড়া ইউনিয়নের নির্বাচন আগামী ৩১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে তিন ইউনিয়নে বাদ পড়া ইউপি নির্বাচন একই তারিখে অনুষ্ঠিত হবে। এরমধ্যে ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ২৫ হাজার ৮৪৯, কাশিপুর ইউনিয়নে ২৩ হাজার ৮৮১ ও ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নে ২১ হাজার ৪৯১ জন।

সদ্য বিলুপ্ত ছিটমহলের ভোটার সংখ্যা ২ হাজার ৯৯৮ জন। দেশের বৃহত্তম ছিটমহল দাসিয়ারছড়া ইউনিয়ন হিসেবে ঘোষণা না হওয়ায় এই ছিটমহলের ভোটারদের পাশাপাশি ৩টি ইউনিয়নে সাথে যুক্ত করা হয়। ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নে দাসিয়াছড়ার ভোটার ২ হাজার ৩১৯ জন, কাশিপুর ইউনিয়নে ৯২ জন এবং ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নে ১৫১ জনকে ভোটার হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে বলে উপজেলা নির্বাচন অফিসার হাসিব বিন শাহাব নিশ্চিত করেন। এ দিকে আগামি ৩১ অক্টোবর জীবনে প্রথম বারের মত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট দিতে পারছে সদ্য বিলুপ্ত ছিটমহলের অধিবাসীরা। ফলে পুরো দাসিয়ারছড়ায় বইছে আনন্দের ঝর্ণাধারা ।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ভারত ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা খান জানান, দাসিয়ারছড়াবাসী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে চির কৃতজ্ঞ। ৬৮ বছরের অবরুদ্ধ জীবনের চিরতরে অবসান ঘটিয়ে আমরা প্রথম বারের মত বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে ভোট দিতে পারবো বড় আনন্দ লাগছে মনের মধ্যে।

তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান, মেম্বার, সংরক্ষিত মহিলা প্রার্থীরা এখন থেকে জনসংযোগ শুরু করেছেন এবং ভোটাদের কাছে দোয়া কামনা করছে। উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারের চায়ের দোকানে চলছে পছন্দের প্রার্থীদের পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনা। তবে বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীর অনেকেই প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ দেখাচ্ছেন। তাদের বেশীরভাগই ‘মেম্বার’ পদপ্রার্থী।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিলুপ্ত ছিটমহলগুলোর বাসিন্দারা সুষ্ঠুভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন, সে লক্ষ্যে সবধরণের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
দু’দেশের স্থলসীমান্ত চুক্তি অনুযায়ী ফুলবাড়ী উপজেলার সদ্য বিলুপ্ত দাসিয়ারছড়াসহ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের ১১১টি বাংলাদেশে ও ভারতের অভ্যন্তরের বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল ভারতের মূল ভূখন্ডে ২০১৫ সালের ৩১ জুলাই মধ্য রাতে অর্ন্তভূক্তি হয়।