মেইন ম্যেনু

কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ লাগিয়ে কুমারত্ব হারালেন সেই আবেদ! (ভিডিও)

কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ লাগিয়ে কুমারত্ব ভাঙলেন মোহাম্মাদ আবেদ! স্কটল্যান্ডের এডিনবার্গের আবেদ ৮ বছর বয়সে সড়ক দুর্ঘটনায় তার পুরুষাঙ্গ হারান। তিনি ২০১২ সালে ৪০ বছর বয়সে কৃত্রিম লিঙ্গ সংযোজন করেন। সম্প্রতি ডাক্তারের অনুমতি পেয়ে এক নারীর সঙ্গে দৈহিক মিলনে ৪৪ বছরের কুমার জীবনের ইতি টানলেন মোহাম্মদ আবেদ।

আবেদের পুরুষাঙ্গ ফিরে পেতে ৯ বার অপারেশন করতে হয়েছে। জুলাই মাসে শেষ অপারেশন করার পর চিকিৎসকের কাছ থেকে অনুমতি পেয়ে শারীরিক মিলন করেছেন।

চারলোট্টে রোজ (৩৫) নামে এক যৌন কর্মীর সঙ্গে তিনি শারীরিক মিলন করেছেন। এ যৌন কর্মীর সঙ্গে তার কিছু দিন আগে পরিচয় হয়। তারা কয়েকদিন মেলামেশার মাধ্যমে তার একে অপরকে জানেন। অবশেষে তারা সেন্টাল লন্ডনের একটি হোটলে রাত কাটান।

রোজ বলেন, ‘আবেদ আমাকে তৃপ্ত করেছে। আমি মুগ্ধ। আবেদ প্রায় দুই ঘন্টা পর্যন্ত শারীরিক মিলন করতে পেরেছে। আমরা বিছানায় হাসিখুশি ছিলাম। আমারা কক্ষটি উষ্ণ করে তুলতে পেরেছিলাম। যৌন কর্মী হিসেবে এক হাজার পুরুষের সঙ্গে রাত কাটিয়েছি। আবেদ আমার জীবনে প্রথম কৃত্রিম লিঙ্গের পুরুষ।’

Charlo_220160322055103

রোজের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক বিষয়ে আবেদ বলেন, ‘১৮ বছর বয়স থেকে এ দিনটির জন্য অপেক্ষায় ছিলাম। কোনোদিন ভাবিনি আমার জীবনে এ দিনটি আসবে। ওই রাতে রোজ প্রথমে নিরব ছিলো। আমি একটু চিন্তিত ছিলাম। কৃত্রিম লিঙ্গ প্রথমে উন্থিত হচ্ছিলো না। দ্বিতীয়বার এটি কাজ শুরু করে। রোজ এটিকে অবিশ্বাস্য বলেছে। আর রোজ আমার কাছ থেকে তার ফি ১৬০ পাউন্ড নেয়নি।’

আবেদ আরো বলেন, ‘এখন নতুন জীবন শুরু করতে প্রস্তুত। এতো আত্মবিশ্বাস আগে ছিলো না। আমি দুটি সন্তানের বাবা হতে চাই। একটি ছেলে একটি মেয়ে। চিকিৎসকরা বলেছেন, আগামী বছর থেকে দীর্ঘ মেয়াদি যৌন জীবনে ফিরতে পারবো।’

আবেদের কৃত্রিম লিঙ্গে অণ্ডকোষের সঙ্গে দুটি সইচ রয়েছে। একটি সুইচ চাপলে তার কৃত্রিম লিঙ্গ ফুলে উঠবে। অপরটি চাপলে চুপসে যাবে।

আবেদ কৃত্রিম লিঙ্গ সংযোজনের জন্য ৩১ বা ৩২ বছর বয়সে চিকিৎসকের কাছে যান। তার ৩৭ বছর বয়সে হাসপাতাল থেকে একটি চিঠি আসে। চিঠির মাধ্যমে তাকে জানানো হয়, চিকিৎসকরা তার লিঙ্গ সংযোজন করতে প্রস্তুত।

নিউরোলজিস্ট নিম ক্রিস্টোফার আবেদের কৃত্রিম লিঙ্গ সংযোজন করেন। আবেদের হাতের পেশি থেকে মাংস কেটে নিয়ে একটি রোল বানায় চিকিৎসকরা। সেটি আবেদের পুরুষাঙ্গ হিসেবে লাগিয়ে দেওয়া হয়।

কৃত্রিম লিঙ্গ সংযোজন করার আগে আবেদ বিয়ে করেছিলেন। বিয়ের আগের রাত পর্যন্ত স্ত্রীর কাছে তার অক্ষমতা গোপন রেখেছিলেন। বিয়ের তিন বছর পর তাদের সংসার ভেঙ্গে যায়। আবেদ এখন আবার বিয়ে করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন।