মেইন ম্যেনু

‘কৃষ্ণচূড়া আগুন তুমি’

ব্যুরো প্রধান, রাজশাহী : কৃষ্ণচূড়া আগুন তুমি আগুন ঝরা বানে, খুন করেছ শূন্য তোমার গুন করেছ গানে। সত্যিই কবিতার ছন্দে কৃষ্ণচূড়াকে বরণ করে নিয়েছে প্রকৃতি। প্রকৃতিকে রাঙিয়ে দিতে নিজের সবটুকু রং ছড়াতে শুরু করেছে কৃষ্ণচূড়া।

বৈশাখ আসতে আর তেমন দেরি না থাকলেও বৃষ্টির ছোঁয়া পেয়েই যেন সে মেলে ধরেছে লুকিয়ে রাখা সবটুকু রং। কৃষ্ণচূড়ার আগুন রাঙা রূপের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে।

6907261022_1a5638234c_b

আর কয়েক দিন পরে আসছে পহেলা বৈশাখের আমেজ। বাঙালি সত্ত্বার সঙ্গে যার সম্পর্ক অবিচ্ছেদ্য। বনে বনে কৃষ্ণচূড়ার লাল রঙ মনে জ্বালিয়ে দেয় বিদ্রোহের আগুন, বিপ্লবের আগুন। আর সেই বিপ্লবের আগুন জ্বালতে প্রকৃতিতে ফুলে ফুলে ভরে উঠেছে কৃষ্ণচূড়া ফুল।

এরই মধ্যে রাজশাহী মহানগরীর, রাজশাহী কলেজ মহিলা হোস্টেলের সমানে ও কলেজের পদ্মা গার্ডেন সংলগ্ন, বিসিক শিল্প নগরীর সপুরা এলাকায়, পুলিশ লাইন, নগরীর শ্রী রামপুর এলাকায়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, ভদ্রা ও শিরোইল কলোনীর এলাকায় কৃষ্ণচূড়ার গছে ফুলে ফুলে ভরে উঠেছে। আর সেই রঙ ছড়িয়ে দিচ্ছে প্রকৃতিতে।

krishnachura

বাংলাপিডিয়া থেকে জানা যায়, কৃষ্ণচূড়া Caesalpinieae গোত্রের Delonix regia প্রজাতির আকর্ষণীয় ফুলবিশিষ্ট গাছের সাধারণ নাম। এ গাছ মধ্যম থেকে লম্বা গড়নের মাথা ছড়ানো। ফুল ফোটে এপ্রিল থেকে জুন মাস পর্যন্ত।

কমলা অথবা লাল রঙের আকর্ষণীয় ফুলের ডালের আগাছা গুচ্ছবদ্ধ। আগস্ট ও অক্টোবরের মাঝামাঝি ফল হয়। শুঁটি ৩০-৬১ সেমি লম্বা হয়। চমৎকার পাতা ও সুন্দর ফুলের জন্য সারাদেশে জনপ্রিয়। বাগান ও রাস্তার পাশে ব্যাপকভাবে রোপন করা হয়।