মেইন ম্যেনু

কেজরিওয়ালের জুতা নেই!

ভারতের আলোচিত রাজনীতিক অরবিন্দ কেজরিওয়ালের কি জুতা নেই? এ প্রশ্ন নিশ্চয়ই অবান্তর। দিল্লির মসনদ যার দখলে, তার একজোড়া জুতা থাকবে না, তা কি হয়? কিন্তু ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদের সম্মানে দেওয়া রাষ্ট্রপতির ভোজসভায় তিনি কেন স্যান্ডেল পরে গেলেন? বিদেশি অতিথিদের সামনে স্যান্ডেল পরে গিয়ে তিনি কি ভারতের মুখ উজ্জ্বল করেছেন না কি ম্লান করেছেন দেশের ভাবমূর্তি?

কেজরিওয়াল সাদামাঠা জীবনযাপন করেন বোঝাতে হয়তো তিনি স্যান্ডেল পরে গেছেন। কিন্তু বিষয়টি মানতে পারেননি বিশাখাপত্তনমের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সুমিত আগরওয়াল। তার সরল বক্তব্য, দিল্লির যন্তর-মন্তর ময়দানের সমাবেশে কেজরিওয়ালা খালি পায়ে যান আর যা-ই করুন না কেন, বিদেশি অতিথিদের সামনে চটি পায়ে দিয়ে যেতে পারেন না তিনি।

আগরওয়াল কেজরিওয়ালের ওপর বেজায় চটেছেন। স্যান্ডেল পায়ে রাষ্ট্রপতি ভবনে যাওয়ার খবর শুনে এবং ছবি দেখে ক্ষোভ সামলাতে পারেননি তিনি। তাই কেজরিওয়ালকে একজোড়া জুতা কেনার অর্থ দিতে চাঁদা তোলা শুরু করেন তিনি। নিজেও দিয়েছেন ৪৯ রুপি। সবমিলে জোগাড় হয় ৩৬৪ রুপি। ডিমান্ড ড্রাফটের মাধ্যমে কেজরিওয়ালের জন্য তা পাঠিয়েও দিয়েছেন।

কিন্তু ৩৬৪ রুপিতে কি জুতা পাওয়া যায়? সুমিত আগরওয়ালাও জানেন এই কয় রুপিতে জুতা হবে না। তাই ডিমান্ড ড্রাফটের সঙ্গে একটি চিঠি পাঠিয়ে তাতে বলেছেন, আরো রুপির দরকার হলে তিনি তা পাঠিয়ে দেবেন। এ জন্য তিনি চাঁদা তুলছেন।

অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গান্ধীবাদী নেতা বলা হয়। সহজ-সরল জীবনযাপনে ঝোঁক রয়েছে তার। কিন্তু রাষ্ট্রীয় কাজে তিনি সবসময় স্যান্ডেল পরেন না, জুতা পরেন। তবে কেন তিনি বিদেশি অতিথিদের সামনে স্যান্ডেল পরে গেলেন? আর যেন এমন না করেন, সেজন্য চাঁদা তুলে সুমিত রুপি পাঠিয়েছেন কেজরিওয়ালকে।

তথ্যসূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইন।