মেইন ম্যেনু

কে দেবে ডালমিয়ার মেয়ের প্রশ্নগুলোর উত্তর?

আইসিসির সাবেক সভাপতি ও ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের সভাপতি জগমোহন ডালমিয়ার মৃত্যু ২৪ঘণ্টা হতে না হতেই বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। কলকতার প্রভাবশালী দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা এবং অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘এই সময়’ দাবি করছে চিকিৎসকের গাফিলতি হতে পারে ডালমিয়ার মৃত্যু হয়েছে।

আনন্দবাজারকে ডালমিয়ার মেয়ে বৈশালী ডালমিয়া জানিয়েছেন, ‘সন্ধ্যা পর্যন্ত বাবা ভাল ছিলেন, এমনটাই হাসপাতালের পক্ষ থেকে আমাদের বলা হল। কিন্তু রাত সাড়ে আটটার দিকে যে কী হল, আমরা এখনও বুঝতে পারছি না। আমাদের সামনেই ডাক্তাররা হঠাৎই দরজাগুলো বন্ধ করতে শুরু করে দেন। বলেন অবস্থা খারাপ হয়েছে। মা কাঁপছিলেন। বাবাকে জল পর্যন্ত খাওয়াতে দেয়নি ওরা। দশ মিনিট পরেই জানিয়ে দেওয়া হয় যে বাবা আর নেই।’ ডালমিয়ার মেয়ের প্রশ্ন, কেন তার বাবাকে পানি খেতে দেয়া হলো না? হঠাৎ সাড়ে আটটার দিকে ডাক্তারা বাবাকে কি করেছেন? মাত্র দশ মিনিট পর জানিয়ে দিল বাবা নেই! কি হয়েছিল সেখানে?

বৈশালী আরও বলেন, ‘পাকস্থলীতে রক্তক্ষরণের কথা যে বলা হচ্ছে সেটা কেন বুঝতে পারছি না। বাবার কিন্তু কোনও আলসার বা অন্য কোনও সমস্যা ছিল না।’এ ব্যাপারে আনন্দবাজারসহ অনান্য গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা জানতে চাইলে ডাক্তার অনিল মিশ্র বলেন, ‘রাতের দিকে ডালমিয়ার সমস্যা শুরু হয়। রিং বসানোর সময় শারীরিক অবস্থা ঠিকই ছিল। আচমকাই রাতে ওনার পাকস্থলি থেকে প্রবল রক্তক্ষরণ শুরু হয়। সব রকম চেষ্টা করেও আমরা কিছু করতে পারিনি।’কেন পাকস্থলীতে রক্তক্ষরণ হল তা নিয়েও কোন উত্তর পাওয়া যায় নি ডাক্তার অনিল মিশ্রের কাছে।

কলকাতার বিশিষ্ট হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছে, বাড়তি ঝুঁকি নিয়ে চিকিৎসা করতে গিয়েই হিতে বিপরীত হয়েছে।
অন্য দিকে অনলাইন পত্রিকা এই সময় বলছে হ্যার্ট অ্যাটাকের কারণে আইসিইউতে ভর্তি হলেও পাকস্থলীতে রক্তরক্ষণের জন্য কেন ডালমিয়া মারা গেলেন সেই যুক্তিটা অনেক নামীদামী ডাক্তাররাই মানছেন না।