মেইন ম্যেনু

কোথায় গেল মেয়েটা? দশম শ্রেণির ছাত্রীকে ঘিরে রহস্য বর্ধমানে

১৫ দিন পার হলেও খোঁজ নেই বর্ধমানের উল্লাসের দশম শ্রেণির ছাত্রী দেবলীনা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। আসেনি কোনও মুক্তিপণ চেয়ে ফোন। তাই দুঃশ্চিন্তায় দিন কাটছে বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের।

পড়াশোনায় বরাবরই মেধাবী দেবলীনা। বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল গার্লস হাই স্কুলের দশম শ্রেণির এই ছাত্রী গত ৮ জুলাই স্কুলে যাওয়ার পরে আর বাড়ি ফেরেনি। অপহরণ করা হয়েছে এমনটাই অভিযোগ পরিবারের। প্রশাসনের দরজায় দরজায় ঘুরেও মেয়ের সন্ধান না পাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পরিবার। দেবলীনার বাবা সীতারাম বন্দ্যোপাধ্যায় পেশায় টেলিকমিউনিকশনের কর্মী। ২০১২ সালে এক দুর্ঘটনায় তাঁর বাঁ পা বাদ যায়। জানা গিয়েছে, সেই সময় কম্পিউটার সারানোর জন্য অনিমেষ নস্কর নামে বর্ধমানের পারাপুকুর এলাকার এক যুবক তাঁর বাড়ি আসে। আস্তে আস্তে ভাব জমায় ওই পরিবারের সঙ্গে।

বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের অভিযোগ, গত ৮ জুলাই অনিমেষ দেবলীনাকে স্কুল থেকে বাড়ি আনতে যায়। আর ফেরেনি। দেবলীনাও ফেরেনি। এর পর থেকেই অনিমেষের ফোন সুইচড অফ। পারাপুকুরে তাঁর বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, দরজায় তালা। তখনই থানায় অনিমেষের বিরুদ্ধে মেয়েকে অপহরণের অভিযোগ করে বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবার। পরে জানা যায়, অনিমেষ বিবাহিত। কলকাতায় তার স্ত্রী আছেন। তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনিও কিছুই জানাতে পারেননি।

সব মিলিয়ে, এখনও অন্ধকারে প্রশাসন, উৎকণ্ঠায় বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবার।