মেইন ম্যেনু

কোনো ছুটি ছাড়াই ৪৩ বছরের চাকরি অনিল বাবুর!

কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবীরা যা পারেননি, তাই-ই করে দেখালেন বহরমপুর জজকোর্টের এনডিপিএস এজলাসের পেশকার, অর্থাৎ প্রধান করণিক অনিল রায়।

আদালত মানেই নানা ছুতায় কর্মবিরতি। সেই প্রবণতা রুখতে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি মঞ্জুলা চেল্লুর। ওই দৃষ্টান্তের অনেক আগেই আদালতের এক কাজ পাগল কর্মী নীরবে কাজ করে যাওয়ার অনোন্য দৃষ্টান্ত তুলে ধরেছেন। তিনি অনিল রায়। ৪৩ বছরের চাকরি জীবনে একদিনের জন্যেও ছুটি নেওয়া তো দূরের কথা, উল্টো রবিবারও আদালতে হাজির থেকে কাজ তুলেছেন। সেই অনিল বাবু শুক্রবার চাকরি থেকে অবসর নিলেন।

প্রশ্ন উঠতেই পারে, তিনি অসুস্থ হয়েও ছুটি নেননি? সহকর্মী স্বপন চৌধুরী বলেন, তিনি অসুস্থ হয়েছেন এবং আদালতে আসেননি এমন ঘটনাও কখনও ঘটেনি! ছুটি উপভোগের প্রচলিত পথ ছেড়ে অনিল বাবু কেন অন্য পথে হাঁটলেন? অনিল বাবুর মন্তব্য, জনগণের টাকা থেকে সরকার বেতন দেয়। কাজ না করে বেতন না নেওয়াটা অন্যায় হবে। একই সঙ্গে তিনি মনে করেন, আদালতে কাজের পাহাড় জমে রয়েছে।

ছুটির বদলে কাজ করলে সেই চাপ কিছুটা হলেও কমবে। মানুষেরও ভাল হবে। বহরমপুর জজকোর্ট ছাড়াও তিনি কাজ করেছেন কান্দি ও বহরমপুর মহকুমা আদালতে। বহরমপুর উকিলসভার সম্পাদক শুভাঞ্জন সেনগুপ্ত বলেন, বহরমপুর ও কান্দি সর্বত্রই তিনি ছুটির দিনেও আদালতের কাজ করেছেন। বর্তমান কর্ম-সংস্কৃতির যুগে অনিল বাবু অনন্য দৃষ্টান্ত।

সূত্র: আনন্দবাজার