মেইন ম্যেনু

কোন সিনেমার দৃশ্য নয় বাস্তব চিত্র : পৃথিবীর ৯ ভূতুড়ে হোটেল! (ছবি সহ)

হরর মুভিগুলোর খুব প্রচলিত কাহিনীচিত্র হচ্ছে হোটেল ঘরে ভৌতিক বা অতিপ্রাকৃতিক ঘটনাসমূহ। মুভিতে এসব বানোয়াট ঘটনা দেখেই আমাদের অনেকের রাতের ঘুম হারাম হয়ে যায়। আর আজ যদি আপনাদের বলি মুভিতে দেখা ঘটনাগুলাে সত্যিই বাস্তবে ঘটে।

অবাক হলেও সত্যি। পৃখিবীতে বিভিন্ন স্থানে বেশ কিছু হোটেল রয়েছে যে হােটেলগুলােতে প্রায়ই নানা ধরণের ভৌতিক কাণ্ডকারখানা ঘটে। বিশ্বের এমন কিছু হােটেলের আধিভৌতিক ঘটনার বর্ণনা দেয়া হলো:

ballygally-castle

ব্যালিগ্যালি ক্যাসেল হোটেল, লার্ন, নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড (Ballygally Castle Hotel, Larne, Northern Ireland)

১৬২৫ সালে নির্মিত এই হোটেলটির খুব বেশি নামডাক না থাকলেও, এর ভয়ংকর একটি অতীত আছে। এই স্থানে আগে ‘shaw’ পরিবার থাকতো। জেমস ‘শ’-এর স্ত্রী ইসোবেলের কোন পুত্র সন্তান হচ্ছিলো না। এই অপরাধে তাকে এই বাড়ির একটি কক্ষে বন্ধ করে রাখা হয়েছিল। তাকে খাবার-পানি কোনকিছুই দেওয়া হত না।

কিছুদিন পর ইসোবেল জানালার কাঁচ ভেঙ্গে সেখান থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করে। এরপর থেকে ‘শ’ পরিবার নানা কারনে বেশ আর্থিক দুরাবস্থায় পড়লে তারা বাড়িটি বিক্রি করে দেয়। পরবর্তীতে এই জমিতেই Ballygally Castle Hotel নির্মিত হয়। হোটেল চালুর পর থেকে এখানে ইসোবেলের অতৃপ্ত আত্মার অস্তিত্ব ধীরে ধীরে খুব ভালভাবে প্রমানিত হতে থাকে।

হোটেলের অনেক অতিথিরা করিডরে একজন নারীকে দেখেন। অদ্ভুত অদ্ভুত সময়ে তাদের দরজায় কড়া নাড়ার আওয়াজ পাওয়া যায়। ছোট বাচ্চা মেয়েদের হাসির আওয়াজ শব্দও শোনা যায় হােটেলটিতে।


 

1590-sutter-queen-anne-sf-ca

কুইন অ্যানি হোটেল, স্যান ফ্রেনসিস্কো, ক্যালিফাের্নিয়া (Queen Anne Hotel, San Fransisco, California)

 

অত্যন্ত সুন্দর এই হোটেলটিতে প্রায়ই একজন নারীর আত্মাকে ঘুরে বেড়াতে দেখেছেন অনেকে। ধারনা করা হয় এই জমিতে আগে যে স্কুলটি ছিল তার প্রিন্সিপ্যাল ম্যারি লেক-এর আত্মা এটি। হােটেলে আগতদের কাপড়চোপড় প্রায়ই ঠিকঠাক জায়গায় খুঁজে পাওয়া যায় না। আলমারির দরজা প্রায়ই এমনি এমনি খুলে যায়। বিভিন্ন বস্তু শূন্যে ভাসতেও দেখা যায়। মাটিতে পড়ে থাকা বস্তু নিজেই উপরে উঠতে থাকে। তবে এ ধরণের কাণ্ড সবচেয়ে বেশি ঘটে থাকে রুম নাম্বার ৪০১। যেখানে আগে ম্যারি লেকের অফিসরুম ছিল।


 

fairmont-banff-springs-hotel-with-the-bow-river-falls-banff-alberta-canada-george-oze

ফেয়ারমন্ট ব্যানফ স্প্রিংস হোটেল, আলবার্টা, কানাডা (Fairmont Banff Springs Hotel, Alberta, Canada)

 

এই হোটেলটিতে একজন বেলম্যান ও একজন নতুন বধূকে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়। বেলম্যানটিকে ৯ তলায় দেখা যায়। অতিথিদের জিনিসপত্র রুমে পৌঁছে দিয়ে সে হাওয়ায় মিলিয়ে যায়। ধারনা করা হয়, এই হোটেলের অনেক দিন পুরানো এক কর্মচারীর আত্মা এটি যে ১৯৭৫ সালে মারা গিয়েছিল। কিন্তু মারা যাবার পরও সে হোটেল গেস্টদের সহায়তায় ব্যস্ত। আরেকজন যে এই হোটেলে ঘুরে বেড়ায় তিনি হচ্ছেন, বিয়ের দিন এই হোটেলটিতে মারা যাওয়া এক নববধূ। হঠাৎ হঠাৎ হোটেলটিতে কনকনে ঠাণ্ডা হাওয়া বইতে থাকে, লবির একটি বিশাল ঝাড়বাতি প্রবল বেগে দুলতে থাকে।


 

bildspel06-rest

টফটাহম হেরগার্ড, স্ম্যাল্যান্ড, সুইডেন (Toftaholm Herrgard, Smaland, Sweden)

অপূর্ব সুন্দর পরিবেশে ঘিরে থাকা এই হোটেলটিতে রাত্রিযাপন করা যতটা শান্তির মনে হয়, আসলে ততটা শান্তির নয়। হোটেলের দরজা জানালা আচমকা কোন কারণ ছাড়াই বিকট আওয়াজ করে বন্ধ হয়ে যায় আবার খুলে যায়। অনেক উদ্ভট অবর্ণনীয় শব্দ রাতের পাশাপাশি দিনে দুপুরেও শুনতে পাওয়া যায়। লোকমুখে প্রচলিত, এক কৃষকের ছেলে তৎকালীন রাজার মেয়েকে ভালবেসতো। রাজা এই তথ্য জানতে পেরে জোর করে তার মেয়ের বিয়ে অন্য একটি ছেলের সাথে দিয়ে দেয়। দুঃখে চাষিপুত্র আত্মহত্যা করে কখনই তার আত্মা সে জায়গাটি ত্যাগ করেনি।


 

the-langham-hotel

ল্যাংহ্যাম হোটেল, লন্ডন , ইংল্যান্ড (Langham Hotel, London, England)

লন্ডন শহরের ল্যাংহ্যাম হোটেলের রুম নাম্বার ৩৩৩ কে শহরের সবচেয়ে ভূতুড়ে জায়গা বলা হয়। ১৮৬৫ তে চালু হওয়া এই হোটেলটিতে অনেক নামিদামি ব্যাক্তি গেস্ট হিসেবে থেকেছেন। এই হোটেলের প্রায় গেস্টরাই কমপ্লেন করেছেন যে তারা একজন ভিক্টোরিয়ান যুগের পোশাক পরা রুপালি চুলের এক ব্যক্তিকে দেখতে পান। অক্টোবর মাসে সবচেয়ে বেশি এ ধরণের হোটেল কর্তৃপক্ষের কাছে আসে। উল্লেখ্য প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় এখানে একজন জার্মান রাজপুত্র ৪ তলার ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করে। খুব সকালবেলায় হোটেল রুমের দরজার সামনে সেই যুবককে ঘনঘন পায়চারী করতে দেখা যায়। সবচেয়ে বেশি দেখা যায় রুম ৩৩৩ এর সামনে।


 

hotel-queen-mary-long-beach-01

হোটেল কুইন ম্যারি, লং বিচ, ক্যালিফোর্নিয়া (Hotel Queen Mary, Long Beach, California)

অামেরিকার এই বিলাসবহুল জাহাজ হোটেলের অন্যান্য জায়গার চেয়ে সুইমিং পুল এলাকায় সবচেয়ে বেশি ভৌতিক কাণ্ডকারখানা ঘটে। ১৯৩০ সালে ও ১৯৬০ সালে দুইজন মহিলা এই পুলে ডুবে মারা যান অথচ তারা সাঁতার জানতেন। এছাড়াও এখানে ছোট বাচ্চাদের ঘাড় ভেঙ্গে যাওয়ার একটি গুজব রয়েছে। সমগ্র শিপ জুরেই নানান আধিভৌতিক ব্যাপার ঘটে থাকলেও ফার্স্ট ক্লাসের অতিথিদের একটু বেশি ভোগান্তি পোহাতে হয়। সিঁড়িঘরে ১৯৩০ সালের স্টাইলের পােশাক কালো কুচকুচে দাড়িওয়ালা লম্বা একটি লোককে প্রায় রাতেই দেখা যায়।


 

bisbee-grand-hotel-front-960

বিসবি গ্র্যান্ড হোটেল, বিসবি, এরিজোনা (Bisbee Grand Hotel, Bisbee, Arizona)

এই হোটেলটি ১০০ বছরের বেশি দিন ধরে চলছে। এই হোটেলটিতে একজন পুরুষ ও একজন নারীর আত্মার অস্তিত্ব টের পাওয়া যায়। পুরুষ আত্মাটিকে সাধারনত নীচতলায় দেখা যায় এবং নারী আত্মাটিকে অনেকদিন পরপর ভিক্টোরিয়ান স্টাইলের পােশাক পরিহিত অবস্থায় হাতে একটি ট্রে নিয়ে রুম নাম্বার ২ ও ৩ এর মাঝে শূন্যে ভাসতে দেখা যায়। প্রায়ই হোটেলের শান্ত নীরব হলরুমের পিয়ানোটি একা একা বেজে ওঠে।


 

1859-historic-national-hotel-hallway

হিস্টোরিক ন্যাশনাল হোটেল, জেমস টাউন, ক্যালিফোর্ণিয়া (Historic National Hotel, Jamestown, California)

এই হোটেলের কর্মীদের পরামর্শ হচ্ছে, হোটেলে অবস্থানকালীন সময় আপনার যদি মনে হয় আপনি কোন আধিভৌতিক অস্তিত্বের মুখোমুখি হলে, আপনার তাকে ‘হ্যালো’ বলা উচিত। ফ্লো নামের একজন মৃত মানুষের আত্মা হোটেলটিতে ঘুরঘুর করে। সে খুব বেশি ক্ষতিকর নয়। তাকে প্রায়ই জানালায় বসে থাকে দেখা যায়। এরচেয়ে বেশি দেখা যায় তাকে রান্নাঘরে। অনেক সময় গেস্টরা তাদের রুমে হিটার চালু থাকা অবস্থায়ও হাড় কাঁপানো শীতের অনুভূতি পেয়ে থাকেন। বলা হয়ে থাকে, ফ্লো-এর সাথে যার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল বিয়ের দিন সকালে এই জায়গাটিতে তাকে গুলি করে মেরে ফেলা হয়। ১৮৮০ সালের নিউ ইয়ার ইভে ফ্লো এই খবরটি জানতে পেরে, তার ওয়েডিং ড্রেস পরা অবস্থাতেই অবিরত কাঁদতে কাঁদতে হৃদযন্ত্র ক্রিয়া বন্ধ হয়ে সেখানেই মারা যায়।


 

hollywood-roosevelt-hotel-a-thompson-hotelroosevelt-exterior-at-night-jpeg

হোটেল রুসভেল্ট, হলিউড, ক্যালিফোর্নিয়া (Hotel Roosevelt, Hollywood, California)

এই হোটেলটি অনেক বেশী নামকরা। অনেক নামীদামী ব্যক্তিত্ব এই হোটেলে থাকলেও এই হোটেলটিতে মানুষের পাশাপাশি বিশ্রামহীন আত্মারাও রয়েছে যারা প্রতিনিয়ত হোটেলের অতিথিদের চমকে দিচ্ছেন। অনেক হোটেল স্টাফ এবং গেস্ট একজন ব্লন্ড নারীর প্রতিচ্ছবি আয়নাতে দেখতে পান বলে অভিযোগ করেছেন। হোটেলের পুলসাইড এরিয়াতেও সেই নারীকে প্রায়ই দেখা যায়। প্রায়ই হোটেলের টেলিফোন অপারেটরদের কাছে রহস্যময় ফোনকল আসে। কিছু কিছু জায়গা হঠাৎ করে হিমশীতল হয়ে যায়। গেস্ট না থাকা সত্ত্বেও মাঝে মাঝে ৯২৮ নম্বর রুম থেকে একধরনের বাদ্যযন্ত্রের (trombone) আওয়াজ পাওয়া যায়। যেটি কিনা late actor Montgomery Clift-এর সেই বাদ্যযন্ত্রের আওয়াজ, যা তিনি এই হোটেল এ থাকাকালীন বাজিয়েছিলেন।