মেইন ম্যেনু

কোরবানীর হাটে ‘ভেজাল’ গরু কীভাবে চিনবেন?

গরু কিনছেন? চার পা ভালো আছে কি না দেখে নিয়েছেন? রংটা আর দাঁতগুলোও নিশ্চয়ই দেখা হয়েছে। দেখে নিন আরো কিছু বিষয়। গরুটা কি নির্জীব? ভাবলেশহীন হয়ে আপনার দিকে তাকিয়ে আছে? তাহলেই গলদ আছে। গরুর আচরণেই চেনা যাবে গরুতে স্টেরয়েড নামের বিষাক্ত ওষুধ প্রয়োগ করা হয়েছে কি না।

স্টেরয়েড দেওয়া গরুর মাংস দীর্ঘমেয়াদে খাওয়া মানুষের জন্য ক্ষতিকর। তবে ক্রেতারা একটু সময় নিয়ে ভালো করে পর্যবেক্ষণ করলেই স্টেরয়েড প্রয়োগ করা গরু চিনতে পারবেন।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন ও জনস্বাস্থ্য বিভাগের চেয়ারম্যান ড. কে বি এম সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘স্বাভাবিক গরু চঞ্চল না হলেও নড়চড়ের মধ্যে থাকে। অনবরত লেজ নাড়াতে থাকে। আশপাশে কী হচ্ছে তা নিয়ে বেশ সচেতন থাকে। শব্দ শুনলে বা কেউ স্পর্শ করলে প্রতিক্রিয়া দেখায়। কেউ কাছে গেলে চোখ তুলে তাকায়। আর চোখটা খুব উজ্জ্বল থাকবে। মশা মাছি কাছে ঘেঁষলে দ্রুত লেজ দিয়ে তাড়ানোর চেষ্টা করবে। কিন্তু স্টেরয়েড প্রয়োগ করা গরু নির্জীব হয়ে থাকবে। চোখ উজ্জ্বল থাকবে না। বেশ চুপচাপ থাকবে। লেজ নাড়াচাড়া কম করবে। পা ছুঁড়ে প্রতিক্রিয়া দেখাবে বেশ কম। কাছেই শব্দ বা এ ধরনের কিছু ঘটলে সাড়া দেবে কম। ’

কে বি এম সাইফুল ইসলাম আরো বলেন, ‘গরুর শরীর টিপে দেখতে হবে। স্টেরয়েড প্রয়োগ করা গরুর শরীরে টিপ দিলে মাংস দেবে যাবে। সাধারণ গরুর ক্ষেত্রে তা হয় না।’

স্টেরয়েডের ব্যাপারে সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘এটা এক ধরনের ওষুধ যার প্রয়োগে গরুর ক্ষুধা বেড়ে যায়। শরীরে পানি জমে যায়। অনেক গরু পালনকারী মনে করে এ ওষুধ প্রয়োগ করলে মাংস বেড়ে যায়। আসলে পানি জমে যাওয়ার কারণেই গরুকে অনেক মোটা দেখায়।’



« (পূর্বের সংবাদ)