মেইন ম্যেনু

কোর্টকে কোনোভাবেই স্ক্যান্ডালাইজড করা যাবে না

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম জানিয়েছেন, জনকণ্ঠের আদালত অবমাননার রায়ে আদালত সার্বিকভাবে বলেছেন, কোর্টকে কোনভাবেই স্ক্যান্ডালাইজড করা যাবে না এবং সেটা সার্বিকভাবে কোর্ট হোক বা যে কোন বিচারক হোক। তিনি জানান আদালত বলেছেন, সমালোচনা করা যাবে কিন্তু তার মাধ্যমে কাউকে স্ক্যান্ডালাইজড করা যাবে না।

বৃহস্পতিবার জনকণ্ঠের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণার পর অ্যাটর্নি জেনারেল সুপ্রিম কোর্টে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের একথা জানান।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, সংক্ষিপ্ত রায়ে আদালত বলেছেন, কন্টেম্পট অ্যাক্ট পুরানো হয়ে গেছে নতুন করে প্রণয়ন করা প্রয়োজন।

আদালত এও বলেছেন, হা্ইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্ট তারা শুধুমাত্র কন্টেমপ্ট অব কোড ১৯২৬ এর আন্ডারে এই কন্টেম্প রুল ইস্যু করেননি। তারা সংবিধানের যে বিধান আছে তার আলোকে কন্টেম্পট অব রুল জারি করেছেন। সমগ্র বিষয় বিবেচনা করে আতিক উল্লাহ খান মাসুদ এবং স্বদেশ রায়কে দোষী সাব্যস্থ করে সাজা দিয়োছেন আদালত।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কন্টেম্পেটের বিষয়ে অন্য মামলায় কি দেওয়া হলো আর এই মামলায় কতখানি দেওয়া হবে সেটা বিবেচ্য বিষয় না। কোর্ট বিভিন্ন মামলায় বিভিন্ন সাজা দিতে পারে।

কোর্ট সামগ্রিক বিষয়গুলো বিবেচনা করে এ রায় দিয়েছেন। কাজেই মাহমুদুর রহমানকে ছয় মাস সাজা দেওয়া হয়েছে আর আতিক উল্লাহ খান মাসুদকেও ছয় মাস সাজা দেওয়া হবে এই কথা ঠিক না। এটা আদালতের বিবেচ্য বিষয়। ছয়জন বিচারপতি বসে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সার্বিক বিষয় বিবেচনায় নিয়ে তারা এ রায় দিয়েছেন।

তিনি বলেন, লেখা নিয়ে অবশ্যই আদালত অবমাননা হয়েছে। এবং সেজন্যই ওনাদের আজ এ দণ্ড দেওয়া হলো এবং জরিমানা করা হলো। আপনারা মনে রাখবেন আদালত অবমাননার এক ঘন্টার দণ্ড আর এক বছরের দণ্ড দুইটাই কিন্তু দণ্ড।

তিনি বলেন, স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের স্বাধীনতা সংবিধানেই দেওয়া আছে। আদালত সংক্ষিপ্ত রায়ে সেটি বলেছেন, কিন্তু তার কতগুলো লিমিটেশন থাকবে। স্বাধীনভাবে কথা বলা মানেই এই না লাগামহীনভাবে হতে থাকবে। আদালত অবমাননার সীমারেখা আছে সেটা বিবেচনায় নিতে হবে।

আদালত নিয়ে কথা বলার লিমিটটা কতখানি তার পূর্নাঙ্গ রায়ে বিস্তারিত পাওয়া যাবে।

সংসদ অবশ্যই আইন করতে পারে কিন্তু আমাদের সংবিধানের ৭ (২) ধারায় যা বলা আছে। সংবিধানের মূল স্তম্ভ আছে তা পরিবর্তন করা যাবে না। এ বিষয়ে বিস্তারিত পূর্ণাঙ্গ রায়ে পাওয়া যাবে বলে জানান অ্যাটর্নি জেনারেল।

রাষ্ট্রের প্রধান এ আইন কর্মকর্তা বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য দেশের আদালত অবমাননা হয় না। তারা রেসপনসিবল হয়ে এমন অনেক কায়দা লেখেন তাতে আদালত অবমাননা হয় না। বরং মনের কথাও বলা হয়।