মেইন ম্যেনু

ক্যানসারের ঝুঁকি কমাবে ঘাম

নিয়মিত ব্যায়াম উচ্চরক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, মানসিক চাপসহ বিভিন্ন রোগবালাই থেকে মুক্তি দেয়। কিন্তু জানেন কি, নিয়মিত ব্যায়ামে কমবে ক্যানসারের মতো জটিল রোগের ঝুঁকিও। এর মূল কারণ হচ্ছে ঘাম। ঘাম ঝরবে এমন কাজে ক্যানসারের ঝুঁকি কমে। সম্প্রতি ডেনমার্কের কোপেনহাগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা জানান, ক্যানসার প্রতিরোধের অন্যতম হাতিয়ার হয়ে উঠতে পারে ব্যায়াম।

গবেষণায় বলা হয়- শুধু ক্যানসার প্রতিরোধই নয়, যাদের একবার ওই রোগ হয়েছিল এবং চিকিৎসায় সেরে উঠেছেন এমন ব্যক্তিরা নিয়মিত ব্যায়াম করলে রোগ ফিরে আসার ঝুঁকি কমে।

কোপেনহাগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা গবেষণাগারে ইঁদুরদের উপর এই গবেষণা চালিয়েছিলেন। সেখানে ইঁদুরদের দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছিল। এক ভাগকে গবেষণাগারে ‘অ্যাক্টিভিটি হুইল’-এর উপরে রাখা হয়েছিল। ফলে নিয়মিত তাদের দৌড়ঝাঁপ চলেছে। অন্য ইঁদুরগুলোকে রাখা হয়েছিল সাধারণ খাঁচায়, যেখানে স্বাভাবিক নড়াচড়ার বাইরে তাদের আর কোনও কাজ ছিল না। এই দুই ভাগের ইঁদুরদের আবার তিন ভাগে ভাগ করে তাদের লিভার, ত্বক ও ফুসফুসে ক্যানসারের কোষ ঢুকিয়ে দেওয়া হয়।

নির্দিষ্ট সময় পরে দেখা যায়, যে ইঁদুরগুলো অ্যাক্টিভিটি হুইলে দৌড়ঝাঁপ করেছে, তাদের লিভারে টিউমারের বৃদ্ধি অন্য ইঁদুর অর্থাৎ যারা দৌড়ঝাঁপের সুযোগ পায়নি, তাদের তুলনায় ৬১% কম। ফুসফুসের ক্ষেত্রে ৫৮% কম। ত্বকের ক্যানসারের ক্ষেত্রে মাত্র ৩১ শতাংশের মধ্যে ক্যানসারের কোষ বৃদ্ধি পেয়েছে। যেখানে দৌড়ঝাঁপ না করা ইঁদুরদের ৭৫ শতাংশের মধ্যেই টিউমার হয়েছে।

বিজ্ঞানীদের ব্যাখ্যা, ইঁদুরের দেহে তৈরি হওয়া টিউমারগুলোকে মাইক্রোস্কোপের নিচে রেখে দেখা গিয়েছে, দৌড়ঝাঁপ করা ইঁদুরদের মধ্যে রোগ প্রতিরোধকারী কোষ (ইমিউন সেল) অনেক বেশি তৈরি হয়। একবার নয়, একাধিক বার পরীক্ষা করে একই ফল মিলেছে।

একই রকম ভাবে দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে ক্যানসার প্রতিরোধের পথ দেখিয়েছেন ব্রিটিশ গবেষকরা। ইউনিভার্সিটি কলেজ অব লন্ডনের একদল বিজ্ঞানীর মতে, ক্যানসারের দুর্বলতম জায়গাটা খুঁজে পেয়েছি। সমস্ত কোষের সাধারণ পরিবর্তন ঘটানো এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বিশেষ প্রক্রিয়ায় বাড়িয়ে তোলাই হল সাফল্যের চাবিকাঠি। আর এর সঙ্গেও শারীরিক পরিশ্রমের বিষয়টি যুক্ত। শরীরচর্চা বাড়ালে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনায়াসেই ক্যানসার নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।

বিশেষজ্ঞরা জানান, শুধুমাত্র জিমে গিয়েই শরীরচর্চা করতে হবে এমনটা নয়। যে কোন ভাবে ঘাম ঝরানো পরিশ্রমটা প্রয়োজন। সব চেয়ে ভাল হল হাঁটা। দিনে অন্তত আধ ঘণ্টা থেকে ৪৫ মিনিট।