মেইন ম্যেনু

ক্যামেরা বন্ধ হতেই কেঁদে ফেললেন সানি

সম্প্রতি একটি টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে আলোচিত অভিনেত্রী সানি লিওনকে প্রশ্ন করে বিব্রত করতে চেয়েছিলেন এক সাংবাদিক। এই সাক্ষাৎকার প্রচারিত হওয়ার পরই সমালোচনার ঝড় উঠেছে। পুরো সময়টা মাথা ঠাণ্ডা রেখেই উত্তর দিয়েছেন সানি। তবে ক্যামেরা বন্ধ হতেই কেঁদে ফেললেন অভিনেত্রী। সানির স্বামী ড্যানিয়েল ওয়েবার ঘটনার পর মিডিয়ার কাছে প্রকাশ করেছেন এই তথ্য।

সাক্ষাৎকারের শুরু থেকে সানিকে ‘পর্ন কুইন’ বলে সম্বোধন করছিলেন সেই সাংবাদিক। তাকে প্রশ্ন করা হয়, ‘পর্ন তারকা হিসেবে আপনার অতীত কি আপনাকে তাড়া করে বেড়ায়?’ সানি বলেন, ‘যা করেছি বেশ করেছি। আমি সেসব নিয়ে ভাবিই না। হয়তো কোনও একদিন বড় মাপের কোনও তারকার সঙ্গে আমি কাজ করব। সেই মুহূর্তে কাজটাই আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমার অতীত নয়। তাই আমার পর্ন ছবিতে অভিনয় আমার এখনকার জীবনে কোনও প্রভাব ফেলে না।’

সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে সানির পাশেই দাঁড়িয়েছেন বলিউডের একটা বড় অংশ। কারণ, তার অতীত জীবন থেকে বেরিয়ে এসে অভিনয়ের মাধ্যমে ইন্ডাস্ট্রিতে জায়গা করে নিতে চাইছেন তিনি। কোনও অনুতাপ নেই, বরং আছে মাথা উঁচু করে বাঁচার চেষ্টা। আর সেই চেষ্টাকেই কুর্নিশ করার বদলে অকারণ খোঁচা দেওয়া হয়েছে।

সেই প্রসঙ্গেই ড্যানিয়েল জানিয়েছেন, ‘আমি ওখানে ছিলাম না। ঘটনাটা জানতাম না। ইন্টারভিউ শেষ হতেই সানি আমাকে ফোন করে জানায়। রাগে ও ঠিক মতো করে কথাও বলতে পারছিল না। শুধু এটুকু বলেছিল, তুমি ওখানে থাকলে ইন্টারভিউয়ের মাঝেই আমাকে বের করে নিয়ে আসতে। পরে কেঁদে ফেলে সানি।’

সানির ধৈর্যকে স্যালুট জানিয়ে ওই সাংবাদিককে অপেশাদার বলেছেন ড্যানিয়েল। তিনি জানিয়েছেন, বিষয়টা সানি যেভাবে সামলেছেন তা প্রশংসনীয়। তবে প্রশ্ন উঠেছে ক্যামেরার সামনে সানি লিওনকে বিব্রত করাই কি মূল উদ্দেশ্য ছিল? যদিও এর মধ্যে কেউ কেউ বলছেন, পুরো ব্যাপারটি নাকি প্রচারণার অংশ। নিজের আসন্ন ছবি ‘মাস্তিজাদে’র প্রচারের জন্যই নাকি এসব করেছেন সানি।