মেইন ম্যেনু

ক্যাম্পাস উন্মাদনায় বাংলাদেশের জয়

ওমর ফারুক সোহান: ক্রিকেট বাংলাদেশের জাতীয় খেলা না হলেও জনপ্রিয়তার দিক থেকে জাতীয় খেলার চেয়ে বেশী সাড়া ফেলেছে অনেক আগে থেকেই। মাঠে খেলছে বাংলার খেলোয়াড়রা আর গ্যালারীতে বা টিভিতে বাঙ্গালী দর্শকরা ফেপসে উঠছে সবাই।

বুধবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়াম পাকিস্তানকে উড়িয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। সেই সঙ্গে বিদায় ঘন্টা বাজল পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার। লিগ পদ্ধতির বাকি ম্যাচগুলো এখন নিতান্তই নিয়মরক্ষার। আগামী ৬ মার্চ ভারতের বিরুদ্ধে শিরোপা লড়াইয়ে মাঠে নামবে টিম টাইগার্স।

পাকিস্তানের বিপক্ষে আমাদের এই জয়ে আমরা শুধু ২০১২ এশিয়া কাপে হারের প্রতিশোধই নেই নি, জবাব দিয়েছি আর অনেক ক্রিকেটীয় প্রশ্নের । পাকিস্তানকে ৫ উইকেটের বিশাল ব্যাবধানে পরাজিত করে আমরা প্রমাণ করেছি আমরা শুধু ক্রিকেট খেলি না আমরা ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম পরাশক্তিও বটে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট টীমের এশিয়া কাপ ২০১৬ এর ফাইনালে উঠায় সারা দেশ যেখানে ভাসছে জয় জয় ধ্বনিতে । এর কোন কমতি ছিলনা সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়েও । যদিও বিশ্ববিদ্যালয়টি কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নয়, তবুও এখানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী,কর্মচারী সহ সকলেই নিঃসন্দেহে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেমে আবদ্ধ । এরই বহিঃ প্রকাশ বাংলাদেশের জয়ের পর গোটা ক্যাম্পাসে “বাংলাদেশ বাংলাদেশ” ধ্বনি । শিক্ষার্থীরা ক্লাসের ফাঁকে ফাঁকে কয়েক দফায় আনন্দ মিছিল করে । এতে যেন সারা ক্যাম্পাস মুখরিত হয়ে উঠে । কেউ কেউ আনন্দে আত্মহারা হয়ে মেতে উঠে বিভিন্ন রঙের আবির খেলায় ।
সকলের মুখে মুখে শুধু বাংলাদেশের পাকিস্তান বধের গল্প। এই বিষয়ে গণবির ফার্মেসী বিভাগের শিক্ষক মনির হোসেন বলেন,এক কথায় বাংলাদেশের পারফরমেন্স ছিল অসাধারণ । এখানে মাহমুদুল্লাহ,সৌম্য,তাসকিন,আল আমিন সবাই হিরো আর এই হিরোদের সেনাপতি মাশরাফি ।

সর্বোপরি বাংলাদেশ ক্রিকেট টীমের এই সফল্যের পরিপেক্ষিতে মাশরাফি বাহিনীর উদ্দেশে আমরা বলতে পারি, বিশ্বের বুকের তোমরা আমাদের মাথা উঁচু করিয়েছ । তোমরাই পার সমগ্র জাতিকে এক করতে । যেখানে নেই কোন রাজনৈতিক কিংবা ধর্মীয় ভেদাভেদ । তোমরা আমাদের শক্তি ও প্রেরণার উৎস।



(পরের সংবাদ) »