মেইন ম্যেনু

ক্যারাগিনান কী এবং তা কি আপনার জন্য ক্ষতিকর?

ক্যারাগিনান একটি বিতর্কিত উপাদান যা বিভিন্ন পণ্যে পাওয়া যায়। এটি একটি ফুড অ্যাডিটিভ যা ভক্ষণযোগ্য লাল শৈবালের নির্যাস থেকে তৈরি হয়। খাবার দীর্ঘদিন সংরক্ষণ এবং খাবারের গঠন উন্নত করার জন্য ব্যবহার করা হয় এটি। ক্যারাগিনান সম্পর্কে জেনে নিই চলুন।

ক্যারাগিনান দুই ধরনের হয় – ডিগ্রেডেড এবং আনডিগ্রেডেড। এদের রাসায়নিক গঠন ভিন্ন হয়। ডিগ্রেডেড ক্যারাগিনানকে পলিগিনান বলে, এটি খাবারে ব্যবহার হয় না। এটি ইনফ্লামেশন সৃষ্টির জন্য গবেষণায় ব্যবহার করা হয়। আনডিগ্রেডেড ক্যারাগিনান খাবারে ব্যবহার করা হয়। এটি ইনসুলিন রেজিস্টেন্ট সৃষ্টি করা থেকে শুরু করে ইনফ্লামেশন হওয়া পর্যন্ত সব ধরনের সমস্যা সৃষ্টি করে।

ক্যারাগিনান পাওয়া যায় যে খাবারগুলোতে তা হল – সস, আইসক্রিম, দই, কটেজ চিজ, টফু, ইনফ্যান্ট ফর্মুলা, প্রক্রিয়াজাত মাংস, সাপ্লিমেন্ট, প্রস্তুত খাবার, জুস, ঘোল, কফি ক্রিমার, সালাদ ড্রেসিং এবং আমন্ড,সয়া ও নারিকেলের দুধ।

এই খাবারগুলোর প্রতি ৩.৫ আউন্সে ০.০১% এবং আইসক্রিমে ৪% ক্যারাগিনান থাকে। বিভিন্ন ঘরোয়া পণ্য যেমন- টুথপেস্ট, শ্যাম্পু এবং শু পলিশেও পাওয়া যায় ক্যারাগিনান। ঔষধে ল্যাক্সেটিভ হিসেবে এবং পাকস্থলীর চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয় ক্যারাগিনান।

কিছু গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, ক্যারাগিনান ইনফ্লামেশন বৃদ্ধি করতে পারে। তাই খাদ্যে এটি যোগ না করার কথা বলা হয়েছে।

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, ক্যারাগিনান এর কারণে অন্ত্রের আলসার হয় এবং কোলনে অস্বাভাবিক কোষের বৃদ্ধিকে প্রেরণা দেয়। তাই খাবারে এর উচ্চমাত্রার ব্যবহারকে সীমিত করার কথা বলা হয়েছে।

বিভিন্ন গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, ক্যারাগিনানে কার্সিনোজেনের উপস্থিতির কারণে এটি ক্যান্সারের গঠনকে উদ্দীপিত করে। যদিও এই গবেষণা জীবজন্তুর উপরই সীমিত আছে।

এনিমেল গবেষণায় জানা গেছে যে, ক্যারাগিনান ইনসুলিন রেজিস্টেন্ট এবং গ্লুকোজের অসহনীয়তাও সৃষ্টি করে, বিশেষ করে উচ্চমাত্রার চর্বিযুক্ত ডায়েটের সাথে যুক্ত থাকে যদি।

বিভিন্ন গবেষণাতেই দেখানো হয়েছে যে, ক্যারাগিনান স্বাস্থ্যের উপর নেতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি করে। তবে বেশিরভাগ গবেষণাই টেস্ট টিউবে বা জীবজন্তুর উপর করা হয়েছে বলে মানুষের উপর কেমন প্রভাব ফেলতে পারে তা অস্পষ্টই রয়ে গেছে। তাই বলা যায় যে সীমিত পরিমাণে এর গ্রহণ দুশ্চিন্তার কারণ নয়। তবে প্রক্রিয়াজাত খাবার গ্রহণের পরিমাণ কমালে শুধু ক্যারাগিনান গ্রহণের মাত্রাই কমবে না বরং তা সার্বিক স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সাহায্য করবে।

সূত্র : অথরিটিনিউট্রিশন