মেইন ম্যেনু

‘ক্ষমা না চাওয়া পর্যন্ত পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন’

যতক্ষণ পর্যন্ত গণহত্যার দায় আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করে পাকিস্তান নিঃশর্ত ক্ষমা না চাইবে, ততক্ষণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক ছিন্ন থাকবে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য আ আ স ম আরেফিন সিদ্দিক।

জাতীয় প্রেসক্লাবে শুক্রবার বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ আয়োজিত বিজয় আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

উপাচার্য বলেন, পাকিস্তানের মতো সন্ত্রাসী রাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক রাখার প্রয়োজন আছে বলে মনে করে না ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। আর দেশটির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে সার্ক ও জাতিসংঘ থেকে তাদের সদস্যপদ বাতিল করতে বাংলাদেশ সরকারের উদ্যোগ নেওয়া উচিত বলেও তিনি মনে করেন।

আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডা. কামরুল হাসান খান, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল বাসতে মজুমদার, সদস্য অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম প্রমুখ।

গত ১৪ ডিসেম্বর পাকিস্তানের সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। সিন্ডিকেটের সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি।

সম্প্রতি মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের জড়িত থাকার দায়ে বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসি কার্যকর করা নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে বিবৃতি দেয় পাকিস্তান।

বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে হস্তক্ষেপ করায় ২৩ নভেম্বর পাকিস্তানের হাইকমিশনার সুজা আলমকে তলব করে এর কড়া প্রতিবাদ জানায় বাংলাদেশ।

এর প্রেক্ষিতে ৩০ নভেম্বর পাকিস্তানে নিযুক্ত বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনারকে ডেকে মুক্তিযুদ্ধকালীন গণহত্যার দায় সম্পূর্ণ অস্বীকার করে পাকিস্তান। এরপর থেকে পাকিস্তানের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করার দাবি উঠে নানা মহল থেকে।