মেইন ম্যেনু

ক্ষুদে ফুটবলে ব্রাজিলকে হারিয়েছে বাংলাদেশ

ফুটবলে আবারো বিস্ময় সৃষ্টি করেছে বাংলাদেশ। বিস্ময় ফুটবলের পরাশক্তি ব্রাজিলকে হারিয়ে। মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত সুপার মক কাপে ব্রাজিলের ক্লাব করিন্থিয়ান্সের অনূর্ধ্ব-১৩ দলকে ২-১ গোলে হারিয়ে টুর্নামেন্টের প্লেট সেমিফাইনালে উঠেছে ক্ষুদে ফুটবলাররা। শনিবার ক্রোয়েশিয়ার ডায়নামো জাগরেভের বিপক্ষে সেমিফাইনালে লড়বে বাংলাদেশ।১৯৯০ সালেডানা কাপ ও গোথিয়া কাপে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে বিশ্ব ফুটবলে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিল বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) অনূর্ধ্ব-১২ দল। দীর্ঘ ২৫ বছর পর আবারও বাংলাদেশের ক্ষুদে ফুটবলাররা ব্রাজিলকে হারিয়ে চমক সৃষ্টি করেছে।

ম্যাচে গোলের সূচনা করেছিল শক্তিশালী ব্রাজিলই। ম্যাচের ১৩ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে গোল আদায় করেছিল তারা। শুরুতে বাংলাদেশের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়রা আশানুরূপ খেলতে পারেনি। তবে প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার ৫ মিনিট আগে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। ৩০ মিনিটের মাথায় জিহান গোল করে সমতা ফিরিয়েছিল (১-১)। এই স্কোরেই প্রথমার্ধের খেলা শেষ হয়েছিল।

দ্বিতীয়ার্ধে বাংলাদেশ আক্রমণাত্মক হয়ে উঠেছিল। তাতেই ব্রাজিলিয়ান রক্ষণভাগের শক্ত দুর্গ কেঁপে ওঠেছিল। খেলার ৪৩ মিনিটে জিহান সেই প্রতিরোধ চুরমার করে আবারও গোল করে এগিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশকে (২-১)। এই গোলের পর নানাভাবে চেষ্টা করেও বাংলাদেশকে আর টলাতে পারেনি ব্রাজিলের এই ক্ষুদে দলটি।

সুপার মক কাপে সূচনা ভাল করতে না পারলেও ক্রমেই বাংলাদেশের ক্ষুদে ফুটবলাররা নিজেদের খুঁজে পেয়েছেন। উল্লেখ্য, মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে আমন্ত্রিত টুর্নামেন্ট সুপার মক কাপ ২০১৫-এ বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১২ ও অনূর্ধ্ব-১৩ ফুটবল দল অংশ নিচ্ছে। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৩ দল প্লেট রাউন্ডের ম্যাচে ৫-০ গোলে হারিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার সুওন এস বি উইংগসকে। অন্যদিকে অনূর্ধ্ব-১২ দল কোরিয়ার গিওজে কিম জিঙ উ দলকে হারিয়েছে ৬-১ গোলের ব্যবধানে। অনুর্ধ্ব-১৩ দলের পক্ষে ওই ম্যাচেও জোড়া গোল করেছছিলেন জিহান।

এর আগে বুধবার জাপানের ক্লাব গাম্বা ওসাকার জুনিয়রদের কাছে ২-০ গোলে হেরেছিল অনুর্ধ-১৩ দল। আর একই দিনে মালয়েশিয়ার জিওনসার সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে বাংলাদেশের অনুর্ধ-১২ দল। আর নিজেদের প্রথম ম্যাচে অনুর্ধ্ব-১৩ দল ড্র করলেও হেরেছিল অনুর্ধ্ব-১২ দল। অনুর্ধ্ব-১৩ দল ২-২ গোলে ড্র করেছে থাইল্যান্ডের বুরিরাম ইউনাইটেডের বিপক্ষে। ছোটরা ২-১ গোলে হেরেছিল দক্ষিণ কোরিয়ার সিউল শিনডাপের কাছে।

সেমিফাইনাল নিশ্চিত করার পর বাংলাদেশ দলের ম্যানেজার মানস চন্দ্র দাস জানিয়েছেন, ‘আমরা গত ম্যাচের চেয়ে এই ম্যাচে ভাল খেলেছি। এখন আমাদের লক্ষ্য টুর্নামেন্টের প্লেট ট্রফি অর্জন করা।’দলের কোচ জাকারিয়া বাবু বলেছেন, ‘দলীয় নৈপুণ্য ছিল আশাব্যঞ্জক। তবে এজন্য আমাদের ৩ ম্যাচ অপেক্ষা করতে হল।’

অনূর্ধ্ব-১২, ১৪ ও ১৬ বয়সভিত্তিক খেলোয়াড় দেশব্যাপী বাছাই করা এবং পরবর্তীতে তাদের নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণ করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের আওতাধীন ফুটবল প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে বাফুফে থেকে অনূর্ধ্ব-১৪ ও ১৬ দুটি বাছাইকৃত দল অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। মক কাপে বাংলাদেশের ক্ষুদে ফুটবলারদের এই গৌরবময় নৈপূন্য সেই কার্যক্রমকে আরো বেগবান করবে বলেই বোদ্ধাদের বিশ্বাস।

১৯৯০ সালে ডানা কাপ এবং গোথিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে বিস্ময় সৃষ্টি করেছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৪ দল। দুই আসরে বাংলাদেশের ক্ষুদে ফুটবলাররা ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, ফ্রান্স এবং স্পেনের বয়সভিত্তিক দলকে হারিয়েছিল। বিদেশের মাটিতে বখতিয়ার-রানা-সেলিম-মাসদুরা উড়িয়েছিলেন লাল-সবুজের পতাকা। অবশ্য অতিরিক্ত বয়সের ফুটবলার খেলানোর অভিযোগ থাকায় ট্রফি দুটিতে কিছুটা হলেও কালো দাগ পড়েছিল। তবে তা বাংলাদেশের ফুটবলের উৎসব-জাগরণে বাতাসেই মিলিয়ে গিয়েছে। আবার তেমন এক আশা জাগানিয়া মহেন্দ্রক্ষণের আবহ সৃষ্টি করেছে বাংলাদেশের অনুর্ধ্ব-১৩ দল। আর মাত্র ২টি ম্যাচে জয়ী হতে পারলেই মালয়েশিয়ায় ক্রিকেটের পর আবারো উড়বে লাল-সবুজের পতাকা।