মেইন ম্যেনু

ক্ষুধা পেলেই খাবেন না!‌

ক্ষুধা পেলেই গবগব করে একগাদা খেয়ে নিচ্ছেন?‌ সাবধান!‌ এর থেকে ধরে যেতে পারে ক্রনিক হজমের গন্ডগোল। মত চিকিৎসকদের। তাঁদের মতে, সারা দিনে বারেবারে খান। কিন্তু খাবারের পরিমাণ প্রতিবারই হোক অল্প। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়, খাওয়ার কোনো নির্দিষ্ট সময় না থাকলে।

শুধু পুষ্টিকর খাবার খেলেই হবে না। বজায় রাখতে হবে নির্দিষ্ট সময়ে খাওয়ার অভ্যাসও। পুষ্টিবিদরা বলেন, খুব বেশি তেষ্টা পেয়ে গেলে আমরা ক্ষুধা আর তেষ্টার মধ্যে মধ্যে তফাৎ করতে পারি না। ফলে অকারণে বেশি পরিমাণে খেয়ে ফেলি। তাতে চাপ পড়ে পাকযন্ত্রে।

আমাদের দেহের মধ্যেও থাকে এক জৈব ঘড়ি। যা বিভিন্ন শারীরবৃত্তীয় কাজের সময় বেঁধে দেয়। খাবার হজমের ক্ষেত্রে সেরকমই গুরুত্বপূর্ণ হল উৎসেচক নিঃসরণ। অসময়ে বেশি খেলে ক্ষুধা মরে যায়। ফলে উৎসেচক নিঃসরণের সময় পাকস্থলি ফের ফাঁকা হয়ে যায়। সেটা আরও বেশি ক্ষতিকর।

অসময়ে খুব বেশি ক্ষুধা পেলেও খুব অল্প পরিমাণে খাদ্যগ্রহণ করা উচিৎ। মনোবিদদের মতে আবার, ক্ষুধা অনেক সময় মানসিক। হাতে কোনও কাজ না থাকলে সময় কাটানোর জন্য একগাদা খেয়ে ফেলেন অনেকেই। এই অভ্যাসও ত্যাগ করা উচিত বলে মনে করেন মনোবিদরা।‌‌‌-‌আজকাল