মেইন ম্যেনু

কয়েন নিয়ে বিপাকে ক্রেতা-বিক্রেতা

এক, দুই ও পাঁচ টাকার কয়েন নিয়ে বিপাকে পড়েছে তালা উপজেলার ক্রেতা-বিক্রেতারা। এ নিয়ে প্রতিনিয়ত ঝগড়া-বিবাদে জড়িয়ে পড়ছেন তারা।

জানা গেছে, সাতক্ষীরা জেলার বৃহৎ বাণিজ্যকেন্দ্র তালার পাটকেলঘাটা বাজারে চলছে না এক, দুই ও পাঁচ টাকার কয়েন। পঁচিশ ও পঞ্চাশ পয়সার কয়েন অনেক আগেই বাজার থেকে উধাও হয়ে গেছে। এখন দোকানদাররা কোনো নিতে চাচ্ছেন না। এর কারণ হিসেবে বলছেন, তাদের মহাজনেরা কয়েন নিচ্ছে না।

পাটকেলঘাটা বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রাধারাণী স্টোরের মালিক শেখর সাধু জানান, কয়েন নিতে আমার কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু মালিক মহাজনেরা কয়েন নিতে চায় না। আমার দোকানে ৪০ হাজার টাকার মতো কয়েন আছে। যা চালাতে পারছি না।

চা বিক্রেতা গাজী মনির জানান, তিন টাকার চা বিক্রি করলে অনেক সময় কয়েন দিয়ে চলে যান ক্রেতা। কিছু বলতেও পরি না। আমরা কয়েন নিলেও কোনো কোম্পানির লোক আমাদের কয়েন নিতে চায় না। প্রতিদিন আমার ছোট দোকানে দুই থেকে তিনশ’ টাকার কয়েন হয়।

পাটকেলঘাটা বাজারের এক ক্রেতা জহির বলেন, পান সিগারেট কিনে এক দুই টাকার কয়েন দিলে দোকানদার নিচ্ছে না।

বাজারের কপোতাক্ষ সংবাদপত্র বিপনীর ইমাম হোসেন বাবু বলেন, প্রতিদিন কাগজ বিক্রি করে এক হাজার থেকে দুই হাজার টাকা আদায় হয়। তার মধ্যে প্রায় সবই কয়েন। ফলে পত্রিকার বিল পরিশোধ করতে সমস্যা হচ্ছে।

পাটকেলঘাটার বড়বিলা গ্রামের পান ব্যবসায়ী আজিজুল ইসলাম খান জানান, একশ টাকার কয়েন দিয়ে আশি টাকা নিতে চাইলেও তা মিলছে না।

পাটকেলঘাটা অগ্রণী ব্যাংকসহ অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তাদের কয়েন নিতে অসুবিধা নেই। তবে গ্রাহকেরা কয়েন নিতে চান না।

তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান বলেন, আমি বিষয়টি নিয়ে ব্যাংকের ব্যবস্থাপকদের সাথে কথা বলে একটা সমাধানের চেষ্টা করবো। তিনি ব্যবসায়ীদের সাথেও কথা বলবেন বলে জানান।

এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান জানান, কয়েন নিয়ে সমস্যার বিষয়টি আমি শুনেছি। দুই এক দিনের মধ্যেই বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে সমাধানের চেষ্টা করব।