মেইন ম্যেনু

খাদিজার অবস্থা নিয়ে ধোঁয়াশায় পরিবার

সিলেটে ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলমের চাপাতির কোপে গুরুতর আহত খাদিজা বেগম নার্গিসের শারীরিক অবস্থা নিয়ে তার পরিবার ধোঁয়াশায় রয়েছে।

চিকিৎসকরা সাংবাদিকদের কাছে খাদিজার শারীরিক অবস্থার উন্নতির কথা বললেও পরিবার আশাবাদী হতে পারছে না।

সোমবার সকালে খাদিজার চাচা ফয়জুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, ‘খাদিজার শারীরিক অবস্থা নিয়ে চিকিৎসকরা আমাদের কাছে স্পষ্ট কিছু বলছেন না। চিকিৎসকদের বরাতে শুধু সাংবাদিকরা জানাচ্ছেন, তার উন্নতি হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘চিকিৎসকরা আমাদের যতক্ষণ না আশ্বস্ত করছেন, ততক্ষণ আশাবাদী হতে পারছি না।’

তবে স্কয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গতকাল রোববার সকালে চিকিৎসকরা খাদিজার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে বলেছেন- খুব ধীরে হলেও খাদিজা উন্নতির পথেই রয়েছে।

সোমবার স্কয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বরাতে কাস্টমার কেয়ার কর্মকর্তা কাজী মাহবুবা জানান, খাদিজার বিষয়ে হাসপাতালের পক্ষ থেকে সর্বশেষ যে ব্রিফিং করা হয়েছিল সেটিই তাদের বক্তব্য। এ বিষয়ে কোনো আপডেট থাকলে আবারও ব্রিফ করা হবে।

গত মঙ্গলবার দুপুরে স্কয়ার হাসপাতালে খাদিজার অস্ত্রোপচারের পর চিকিৎসকরা তাকে ৯৬ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখেন।

পর্যবেক্ষণ শেষে অস্ত্রোপচারকারী চিকিৎসক ডা. এএম রেজাউস সাত্তার শনিবার জানান, খাদিজার বেঁচে থাকার সম্ভাবনা বেড়েছে। আগে খাদিজার বাঁচার সম্ভাবনা ছিল ৫ শতাংশ, এখন সেটা বেড়ে হয়েছে ১০ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় গত ৩ অক্টোবর সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী খাদিজা বেগম নার্গিসকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম করে অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ও শাবি ছাত্রলীগের সহসম্পাদক বদরুল আলম।

প্রথমে খাদিজাকে সিলেটে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে মঙ্গলবার তাকে ঢাকায় স্কয়ার হাসপাতালে আনা হয়।

এ ঘটনায় খাদিজার চাচা আবদুল কুদ্দুস বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় বদরুল আলমকে আসামি করে হত্যাচেষ্টা মামলা করেছেন।