মেইন ম্যেনু

খালি পেটে রোজ চা খান? এই নয়ের চক্করে পড়তে পারেন

আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন, যাঁদের আড়মোরা ভাঙে বাসিমুখে গরম চায়ে চুমুক দিয়ে। বেড-টি তাঁদের চাই-ই চাই। এতটা না-হলেও বাসিমুখ ধুয়ে ব্রেকফার্স্টের আগে একপ্রস্থ চা হয়ে যায়, এমন লোকজনও আছেন। এই খালিপেটে যাঁরা দিন শুরুই করেন চা দিয়ে, ভবিষ্যতের কথা ভেবে এখনই সাবধান হোন। কারণ আমরা কী খাবার খাচ্ছি, কতটা জল বা পানীয় সারাদিনে গ্রহণ করছি, তার উপর নির্ভর করে সারাদিন আমাদের কেমন যাবে। সকালে খালি পেটে জল খাওয়া স্বাস্থ্যের পক্ষে যতটা ভালো, চা কিন্তু নয়। সকালের আমেজ আনতে গিয়ে নানা রোগের শিকার হতে পারেন।

ক্ষুধামান্দ্য: খালি পেটে চা খাওয়ার সবচেয়ে বড় কুফল হল খুদামান্দ্য। খালি পেটে চা পড়লে, গ্যাসট্রিক মুকোসা বাড়ে, যার জন্য খিদে মরে যায়।

পাকস্থলি স্ফীতি: খালি পেটে কালো বা র’-চা আপনার পাকস্থলি স্ফীতিরও কারণ হয়ে উঠতে পারে।

অম্বল: চা বাই নেচার অ্যাসিডীয়। যে কারণে খালি পেটে চা খেয়ে অম্বল হতে পারে।

বমিবমি ভাব: চায়ে থাকা ট্যানিন থেকে বমি ভাব আসতে পারে।

প্রস্টেট ক্যানসার: দিনে ৪-৫ কাপ করে চা ছেলেদের প্রস্টেট ক্যানসারের আশঙ্কা বাড়িয়ে তোলে।

ক্লান্তি: ক্লান্তি দূর করতে আমরা সকালে উঠে চা খাই। কিন্তু খালি পেটে দুধের চা তাত্‍‌ক্ষণিক আমেজ আনলেও সারাদিন ক্লান্তির সৃষ্টি করতে পারে। যার জন্য মেজাজও খিটখিটে হতে পারে।

আলসার: খালি পেটে কড়া করে চা, আপনাকে আলসারের দিকে ঠেলে দিতে পারে।

গ্যাসট্রিকের সমস্যা: আদা দেওয়া চা রোজ খালিপেটে খাবেন না। গ্যাসট্রিক অনিবার্য।

বদহজম: চায়ে থাকা ক্যাফেইন, থিওফিলিন জাতীয় পদার্থের জন্য আপনি বদহজমে ভুগতে পারেন।

তাই বেড-টি খেয়ে আলসেমি কাটানো আগে দ্বিতীয়বার ভাবুন।-এই সময়