মেইন ম্যেনু

খালেদার সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আফরোজা আব্বাস!

এর আগে স্বামীর পক্ষে মাঠে নেমেছেন। এবার বিএনপির জন্য মাঠে নামতে চান। কারণ ওই সময় মাঠে নেমে নেতাকর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া ভালোবাসা এখনও ভুলতে পারেননি। আফরোজা আব্বাসের কথা বলছি, যিনি গত সিটি নির্বাচনের সময় স্বামী মির্জা আব্বাসের পক্ষে মাঠে নেমে গোটা মাঠ চষে বেড়িয়েছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের ভালোবাসায় তিনি হয়েছেন সিক্ত। তাই তো দলের জন্য কাজ করতে তার মন টানে ভীষণভাবে!

ইচ্ছা পূরণে অবশ্য বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার দিকে তাকিয়ে আছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের স্ত্রী আফরোজা। দায়িত্ব পেলে তিনি মাঠে নামতে আগ্রহী। তবে নির্দিষ্ট কোনো দায়িত্ব না পেলেও তার কাজ করতে আপত্তি নেই। মির্জা আব্বাসের ঘনিষ্ঠ সূত্র এমন খবরই দিচ্ছে।

গত এপ্রিলে তিনি ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজধানীর বিভিন্ন অলিগলি চষে বেড়িয়েছিলেন। ঢাকা দক্ষিণের মেয়র পদে মির্জা আব্বাস প্রার্থী হলেও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা থাকায় তিনি সময় প্রকাশ্যে আসেননি। তখন হঠাৎ করেই নির্বাচনী মাঠে নেমে বেশ সাড়াও ফেলে দেন। দলের শীর্ষ পর্যায় থেকে তৃণমূলে নেতাকর্মীদের আস্থা কুড়িয়ে নিতেও সক্ষম হয়েছিলেন। তাই তখন থেকেই গুঞ্জন ছিল তাহলে কি রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন আফরোজা আব্বাস। নির্বাচনের পরেও কিছুদিন তাকে বিএনপির কিছু অনুষ্ঠানে অংশ নিতে দেখায় গুঞ্জন আরও জোরালো হয়।

পরবর্তী সময়ে বিএনপির কোনো কর্মসূচি না থাকায় তাকেও আর সেভাবে দেখা যায়নি। তবে সম্প্রতি মির্জা আব্বাসের ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে কথা বলে আফরোজা আব্বাসের রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার ইচ্ছার কথা জানা গেছে। সেক্ষেত্রে বিএনপি চেয়ারপারসন কোনো সিদ্ধান্ত দিলেই তিনি কাজ শুরু করতে চান। পদ যাই হোক তার আপত্তি নেই।

এ বিষয়ে আফরোজা আব্বাসের সঙ্গে কথা বলতে বারবার চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে সম্প্রতি একটি বেসরকারি টেলিভিশনে তার দেয়া সাক্ষাৎকারেও এমন ইঙ্গিত মিলেছে।

মির্জা আব্বাসের একটি ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানা যায়, সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সময় মাঠে নেমে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া সহযোগিতার কথা তার (আফরোজা আব্বাস) এখনও মনে আছে। হুট করে রাজনীতির মাঠে নামার পরও সবাই যেভাবে তাকে গ্রহণ করেছে তাতে তিনি মুগ্ধ। তাই তিনি বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয় হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

তবে সবকিছুই নির্ভর করবে বেগম খালেদা জিয়ার ওপর। সে কারণে তিনি (আফরোজা) বিএনপি প্রধানের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছেন।

এর আগে বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে তাকে মহিলা দলের দায়িত্ব দেয়া হতে পারে বা এই সংগঠনেরই গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখা হতে পারে এমন খবর প্রকাশিত হয়।

এ বিষয়ে আফরোজা আব্বাসের বরাত দিয়ে ওই সূত্রের দাবি, খালেদা জিয়া যেখানে যে দায়িত্ব দেবেন তিনি সেটা পালন করতে প্রস্তুত আছেন। আবার যদি কোনো দায়িত্ব নাও দেন তাতেও তার কোনো আপত্তি নেই।

প্রসঙ্গত, মির্জা আব্বাস ও আফরোজা আব্বাস দুজনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই তাদের পরিচয়। তবে রাজনৈতিক পরিবারে এতদিন কাটালেও তিনি সিটি করপোরেশন নির্বাচন ছাড়া আর তাকে মাঠে দেখা যায়নি। আব্বাস দম্পতির তিন সন্তান রাজনীতির ধারে কাছেও নেই। বড় ছেলে ও একমাত্র মেয়ে বিবাহিত। ছোট ছেলে বিদেশে পড়াশোনা করছেন। তবে নিজে ঢাকা ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সঙ্গে যুক্ত আছেন।