মেইন ম্যেনু

খালেদা জিয়া ভারতের সংসদ সদস্য হতেন!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পার্বত্যাঞ্চল শান্তি চুক্তি বিরোধীতা করে বেগম খালেদা জিয়া বলেছিলেন এ চুক্তি হলে ফেনী থেকে পার্বত কিছু জেলা ভারত নিয়ে নিবে। অনেক বাধার পরও আমরা এ চুক্তি বাস্তবায়নকরেছি।

খালেদার কথামত যদি ভারত এ জেলাগুলো নিয়ে নিত তাহলে খালেদা জিয়া ভারতের সংসদ সদস্য হতেন। কারণ তিনি ঐ সময় ফেনী নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন।

বুধবার জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির (ঢাকা-৬) কাজী ফিরোজ রশীদের লিখিত প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্প নিয়ে যারা ষড়যন্ত্র করেছে তাদের বিচার প্রচলিত নিয়মেই সম্পন্ন করা হবে । দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে পদ্মা সেতু প্রকল্পের বিরুদ্ধে আনীত কথিত দুর্নীতি ষড়যন্তের অভিযোগ ভিত্তিহীন প্রমানিত হয়েছে। তৎকালীন সময়ে পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে বাধা দিতে যারা ষড়যন্ত্র করেছে তাদের বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক তদন্ত করা হয়েছে। ষড়যন্ত্রকারীদের বিচার প্রচলিত নিয়মেই সম্পন্ন হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের আওতায় পদ্মা সেতুতে ৩০ ইঞ্চি ব্যাসের গ্যাস সঞ্চালন পাইপাইল নির্মাণের পরিকল্পনা আছে।

তিনি আরো বলেন, গ্যাস প্রাপ্তি ও পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্পের অর্থায়ন প্রাপ্তি সাপেক্ষে পর্যায়ক্রমে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে গ্যাস পাইপলাইন সম্প্রসারণের পরিকল্পনা আছে। দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে গ্যাস সরবরাহের জন্য পায়রা বন্দরে একটি ল্যান্ড বেসড এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের পরিকল্পনাও সরকার গ্রহণ করেছে ।

ফিরোজপুর-৩ আসনের স্বতন্ত্র সদস্য রুস্তম আলী ফরাজীর প্রশ্নোত্তরে প্রধানমন্ত্রী জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পের বিভিন্ন প্যাকেজের নির্মাণ কাজ তদারকির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতি ষড়যন্ত্রেও অভিযোগ এনে বিশ্বব্যাংক ঋণচুক্তি স্থগিত করে। কিন্তু দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে বিশ্বব্যাংকের সে অভিযোগ ভিত্তিহীন প্রমাণিত হয়।

তবে এক পর্যায়ে বিশ্বব্যাংক এ প্রকল্পে পুর্নরায় ফিরে আসার ঘোষণা দিলেও নতুন নতুন শর্ত আরোপ করে দীর্ঘসূত্রতার পথ অবলম্বন করায় তাদের ঋণ গ্রহণ না করে আওয়ামী লীগ সরকারের সাহসী ও স্বাধীনচেতা নেতৃত্ব ও দৃঢ় সিদ্ধান্তের ফলে বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করে বলেও জানান তিনি।

তিনি আরো জানান, পৃথিবীর বৃহত্তম হাইওয়ে সেতুর মধ্যে (ভায়াডাক্টসহ) পদ্মা সেতুর অবস্থান ২৫তম। তবে নদীর উপর নির্মিত সেতুর মধ্যে পদ্মা সেতুর অবস্থান প্রথম এবং ফাউন্ডেশনের গভীরতার দিক থেকেও এ সেতুর অবস্থান প্রথম।

তিনি আরো জানান, পদ্মা সেতু বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত হচ্ছে। এ সেতু নির্মাণে অন্য কোন দেশ হতে ঋণ নেয়া হচ্ছে না।