মেইন ম্যেনু

খুলে যাচ্ছে সালমান বাটের জাতীয় দলে ফেরার দরজা!

২০১০ সালের এই আগস্ট মাসেই স্পট ফিক্সিং কলঙ্কে পা দিয়ে অন্ধকারে ডুবে গিয়েছিল সালমান বাটের ক্যারিয়ার। স্পট ফিক্সিং কলঙ্কে জড়িয়ে মোট ১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। এর মধ্যে ৫ বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা, ৫ বছর স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা। খাটতে হয়েছে জেলও। ৭ বছর পর সেই আগস্ট মাসেই পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়কের গায়ে লাগল সুবাতাস। যে সুবাতাস গায়ে মাখিয়ে পাকিস্তানের সাবেক ওপেনার আবার জাতীয় দলে ফেরার রঙিন স্বপ্নের মালা গাথা শুরু করতেই পারেন। ২৫ আগস্ট থেকে শুরু হতে যাচ্ছে পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেট টুর্নামেন্ট জাতীয় টি-২০ ক্রিকেট কাপ। এই টুর্নামেন্টে খেলার জন্য নির্বাচিত হয়েছেন সালমান বাট। মানে ২০১০ সালের সেই স্পট ফিক্সিং কলঙ্কের পর এই প্রথমে এই টুর্নামেন্টে খেলতে যাচ্ছেন বাট।

শুধু খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়াই নয়, ৩২ বছর বয়সী বাট জাতীয় টি-২০ এই টুর্নামেন্টে ফিরছেন একেবারে অধিনায়ক হয়ে! ৮ দলের টুর্নামেন্টে বাট নেতৃত্ব দেবেন লাহোর হোয়াইটসকে! এই টুর্নামেন্টে খেলার জন্য নির্বাচিত হওয়ার অর্থ, বাটের জাতীয় দলে ফেরার রাস্তাটা এখন উন্মুক্ত! ভালো পারফরম্যান্স করে নির্বাচকদের দৃষ্টি কাড়তে পারলে অনায়াসেই ঢুকতে পারবেন পাকিস্তান জাতীয় দলে! বাটকে এই টুর্নামেন্টে খেলার ছাড়পত্র দিয়ে সেই বার্তাই দিল পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)!

২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট খেলাকালে স্পট ফিক্সিং কলঙ্কে জড়িয়ে নিষিদ্ধ হন পাকিস্তানের তিন ক্রিকেটার-তাৎকালীন অধিনায়ক সালমান বাট, মোহাম্মদ আসিফ ও মোহাম্মদ আমির। তিনজনকেই খাটতে হয়েছে জেল। তবে এদের মধ্যে সেই কলঙ্কিত জীবনের গল্প শেষ করে মোহাম্মদ আমির আবার জাতীয় দলে ফিরে এসেছেন অনেক আগেই। এবার খুলে যাচ্ছে সালমান বাটের দরজাও। বাটের দিকে মোহাম্মদ আসিফের চোখও নিশ্চয় চকচক করে উঠছে।

জেল-নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বাট পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটে ফেরেন ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে। পিসিবি জাতীয় ওয়ানডে কাপে খেলার অনুমতি দেয় তাকে। বাট ওয়াপদা দলের হয়ে খেলেছেন ২০১৬-১৭ মৌসুমের কায়েদে আজম ট্রফিতেও। তবে ২০১০ সালের পর এই প্রথম কোনো আঞ্চলিক দলের হয়ে খেলতে নামছেন।

জানা গেছে, পাকিস্তানের প্রধান নির্বাচক ইনজামাম-উল-হক এখনো একজন কার্যকরী ওপেনার হিসেবে সালমান বাটের প্রতি ভীষণ মুগ্ধ। বাটকে জাতীয় দলে ফিরিয়ে আনার কথা এর আগেও নাকি ভেবেছিলেন তিনি! কিন্তু এ বছরের পাকিস্তানের সুপার লিগে (পিএসএল) পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা নতুন করে ফিক্সিং কলঙ্কে জড়িয়ে পড়ায় সেই ভাবনা থেকে সরে আসতে বাধ্য হন ইনজামাম! তবে এখন বার্তা স্পষ্টই, ব্যাট হাতে বাট তার সামর্থের প্রমাণ দিতে পারলে, শিগগিরই ৩৩টি টেস্ট, ৭৮টি ওয়ানডে ও ২৪টি টি-টুয়েন্টি খেলা বাটকে দেখা যেতে পারে পাকিস্তান জাতীয় দলে!

৮ দলের এই টি-২০ টুর্নামেন্টে খেলার জন্য নির্বাচিত হয়েছেন মোট ১৫০ জন ক্রিকেটার। ২৫ আগস্ট থেকে ১০ সেপ্টেম্বর, ১৭ দিন ব্যাপী এই টুর্নামেন্টে করাচি হোয়াইটসকে নেতৃত্ব দেবেন টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি, তিন ঘরানার ক্রিকেটেই পাকিস্তানের অধিনায়ক নির্বাচিত হওয়া সরফরাজ আহমেদ। লাহোর হোয়াইটসের নেতৃত্ব দেবেন বাট। লাহোর ব্লুসের অধিনায়কত্ব করবেন মোহাম্মদ হাফিজ। রাওয়ালপিন্ডির অধিনায়ক উমর আমিন, ফয়সালাবাদের নেতৃত্ব দেবেন মিসবাহ-উল-হক। ইসলামাবাদের অধিনায়ক ইমাদ ওয়াসিম, ফাতার অধিনায়ক উসমান খান শেনওয়ারি এবং পেশোয়ারকে নেতৃত্ব দেবেন মোহাম্মদ রিজওয়ান।






মন্তব্য চালু নেই