মেইন ম্যেনু

খেলার অনুমতি পেতে কৌশলে বাবার মন ভুলিয়েছিলেন তাসকিন!

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের তরূণ পেস বোলার তাসকিন আহমেদ, ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেকেই ৫ উইকেট শিকার করে চমকে দিয়েছিলেন সারা বিশ্বকে। গত বিশ্বকাপেও বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার করা এই তরূণ এখন ইনজুরিতে।

তাসকিনের ক্রিকেটে আসার গল্পটা হয়তো অনেকেরই জানা। সেই গল্পটাই তাসকিন নতুন করে বলেছেন ক্রিকেট বিষয়ক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ক্রিকবাজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে, ‘এমনিতে আমার বিকালবেলায় বাসার বাইরে যাবার অনুমতি ছিল না। সকাল ৬টায় স্কুলে যেয়ে দুপুর ১২টায় বাসায় ফিরে আসতাম। এরপর বাবা বলেছিলেন আমি বিকাল ৫টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত বাইরে থাকতে পারবো। কিন্তু একদিন আমি দুপুর ২টাতেই মাঠে চলে যাই। এতে রাগ করে তিনি মাত্র ৩তিন আগেই আমাকে তার কিনে দেওয়া ব্যাটটা আমার পিঠে ভাঙ্গেন।’

এর ৩দিন পর তাসকিনের কাছের বন্ধু কাইয়ুম আবার তাকে কারফিউ ভেঙে মাঠে যাবার প্ররোচণা দেন। তাসকিন তখন বাবাকে রাজি করানোর জন্য নেন নতুন এক কৌশলের আশ্রয়। এ ব্যাপারে তাসকিন বলেন, ‘সাধারণত বাবা যখন খোশমেজাজে থাকেন, হাসি-খুশি থাকেন তখন আমি আমার আবদারগুলো করি। সেদিন বাবা টেলিভিশন দেখছিলেন আর হাসছিলেন, এই সুযোগে আমি বাবাকে গিয়ে বললাম যে কাইয়ুম আমাকে একটা অনুর্ধ্ব-১২ টুর্নামেন্টে খেলার কথা বলেছে, আমি সেখানে যেতে চাই। কিছুক্ষণ চুপ থেকে বাবা বলেন, ঠিক আছে, তুমি যেতে পারো। কিন্তু সবসময় নয়, কয়েকদিনের জন্য। সেসময় আমার স্কুলও কয়েকদিনের জন্য বন্ধ ছিল!’ এভাবেই শুরু হয়েছিল ক্রিকেট মাঠে তাসকিনের পথচলা। ভাগ্যিস সেদিন তাসকিন তার বাবাকে রাজি করাতে পেরেছিলেন!

সূত্রঃ ক্রিকবাজ