মেইন ম্যেনু

গরু গোশত খাওয়ার গুজবে হত্যা: অবশেষে মুখ খুললেন মোদি

অবশেষে আখলাক হত্যাকাণ্ড নিয়ে মুখ খুললেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গত মাসে গরুর মাংস খাওয়ার গুজবে সংঘবদ্ধ হামলায় প্রাণ হারায় মোহাম্মদ আখলাক নামে এক মুসলিম। এরপর থেকেই সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা চলতে থাকে। বিতর্কিত মন্তব্য করে এই পরিস্থিতি আরো উষ্কে দেন দেশটির রাজনীতিবিদরা।

অবশেষ এ নিয়ে মন্তব্য করলেন প্রধানমন্ত্রী। বিহারে চলা এক ক্যাম্পেইনে তিনি বলেন, হিন্দু-মুসলিমদের আসলে দারিদ্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা উচিত। নিজেদের মধ্যে নয়। এ বিষয় নিয়ে হস্তক্ষেপ করার জন্য চাপে ছিলেন নরেন্দ্র মোদি। ভারতের অনেক রাজ্যেই গরু জবাই নিষিদ্ধ। মোদি সরকার পুরো দেশজুড়েই এই নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চায়। কিন্তু মুসলিম সহ ভারতের অন্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায় গরুর মাংস খায়।

নরেন্দ্র মোদি বলেন, ভারতবাসীদের আসলে রাজনীতিবিদদের করা ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন’ বক্তব্য এড়িয়ে যাওয়া উচিত। তিনি বলেন, ‘হিন্দুদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে তারা মুসলিমদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে নাকি দারিদ্রের বিরুদ্ধে।

একইসঙ্গে মুসলিমদেরও সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে তারা হিন্দুদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে নাকি দারিদ্রের বিরুদ্ধে।’ তিনি বলেন, ‘তাদের সবাইকে একসঙ্গে মিলিত হয়ে দারিদ্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হবে। দেশ ও জাতির ঐক্য থাকতে হবে।’

তবে তার এমন মন্তব্যের দিনেই ভারতের সংসদে বিজেপি’র এক সাংসদ সংসদের ভেতরই এক মুসলিম সাংসদকে পিটিয়েছেন। কারণ রশিদ আহমেদ নামে সেই সাংসদ কাশ্মিরে একটি ব্যাক্তিগত অনুষ্ঠানে গরুর মাংস পরিবেশন করেছিলেন।

আর সংসদে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিরোধীদলীয় নেতা ওমর আব্দুল্লাহ ওয়াকআউট করেন। তিনি বলেন, ‘কেউ যদি শূকর খায় কিংবা মদ্যপান করে আমি কি তাদের মারতে যাব?’ সুত্রঃ বিবিসি