মেইন ম্যেনু

গর্ভজাত শিশুরা যেসব বিস্ময়কর কাজ করে থাকে

গর্ভাবস্থা একটি চমৎকার সময় এতে কোন সন্দেহ নেই। কিছু স্বাস্থ্যগত সমস্যার কারণে যেমন- বমি বমি ভাব, পা কামড়ানো ইত্যাদি সমস্যার কারণে যখন সোফার উপর পা তুলে বসেন তখন আপনার শরীরে একটি জীবন বেড়ে উঠছে তা টের পেয়ে বিস্মিত অনুভব করেন আপনি। শিশু মাতৃগর্ভে থাকাকালীন চুপচাপ বসে থাকে আর তার ওজন বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং সে জন্মানোর জন্য অপেক্ষা করতে থাকে এমনটা নয়। গর্ভজাত শিশু এমন কিছু কাজ করে থাকে যা জানলে আপনি অবাক হবেন। সে হাই তোলে, বুড়ো আঙ্গুল চুষে এমনকি স্বপ্নও দেখে। এই রকম আরো অনেক বিস্ময়কর কাজ শিশুরা করে থাকে যেমন-

১। তারা কাঁদে

এটা জেনে আপনি নিশ্চয়ই কষ্ট পাচ্ছেন? গর্ভজাত শিশুরা নীরবে কাঁদে। গর্ভাবস্থার লাস্ট ষ্টেজের তৃতীয় তিনমাসের সময় করা ডিজিটাল আল্ট্রাসাউন্ডে দেখা যায় যে, শিশু মুখ হাঁ করে, চোখ কুঁচকায়, ঠোঁট সতেজ হয় ও ফুঁপিয়ে উঠে যেগুলো আসলে কান্নারই লক্ষণ। এগুলো হতে পারে মুখের উন্নয়নের লক্ষণ অথবা আবেগের উত্থান।

২। তারা মুখস্থ করে

হেলসিঙ্কি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, গর্ভের শিশু যদি নির্দিষ্ট কোন গান বা ছড়া শুনে তাহলে তাদের জন্মের পরে একই গান বা ছড়া শোনানো হলে তাদের হৃদস্পন্দন ধীর হয়। তাই গর্ভের সন্তানের সাথে কথা বললে বা ধর্মীয় বই পড়লে তার চেতনা বৃদ্ধি পায়।

৩। স্বাদ অনুভব করতে পারে

পেডিয়াট্রিক্স জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয় যে, যে সমস্ত গর্ভবতী মায়েরা তাদের তৃতীয় তিনমাসে অনেক বেশি গাজর খান তাদের সন্তানরা গাজর খেতে পছন্দ করে। অবশ্যই গর্ভের শিশুরা খেতে পারেনা। কিন্তু আপনি যে খাবার খান তা অ্যাম্নিওটিক তরলে শোষিত হয় এবং এটি শিশু গ্রহণ করে শ্বাসের মাধ্যমে। ফলে সে এর স্বাদ বুঝতে পারে।

৪। প্রতিক্রিয়া দেখায়

লাঞ্চেস্টার ও ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের করা দুটি পৃথক গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, মায়ের স্ট্রেস বা নেতিবাচক আবেগের প্রতিক্রিয়ায় গর্ভজাত শিশু বিচিলিত হয় এবং বাম হাত দিয়ে তার মুখ ঢাকে। তাই খুব তাড়াতাড়ি শিশুকে স্ট্রেসে না ফেলতে চাইলে দম নিন ও রিলেক্স থাকুন।

৫। তারা প্রকাশ করে

লাঞ্চেস্টার ও ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের করা গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, ২৪ সপ্তাহ বয়সের শিশুর দ্বিমাত্রিক এক্সপ্রেশন যেমন- হাসি দেখা যায় এবং ৩৬ সপ্তাহের শিশুর ভ্রূ কুঁচকায়।

৬। চোখ খুলে দেখা

২৮ সপ্তাহে গর্ভের শিশু চোখ খুলে দেখে। সে খুব বেশি কিছু দেখেনা। কিন্তু দ্বিতীয় তিনমাসের সময় সে আলোর প্রতি প্রতিক্রিয়া দেখায়।

৭। হাসে

৪ ডি স্ক্যান ব্যবহার করে সনোগ্রাফাররা দেখেছেন যে গর্ভজাত শিশু ২৬ সপ্তাহের মধ্যে হাসতে শিখে। আপনার জরায়ুতে থাকাকালীনই সে তার বিজয়ীর হাসি হাসার চেষ্টা করে।

৮। ভয় পায়

আপনি যখন হাঁচি দেন তখন আপনার গর্ভজাত শিশু ভয় পায়। কুকুরের আওয়াজ বা অন্য কোন তীব্র শব্দেও গর্ভজাত শিশু আতংকিত হয়।

এছাড়াও গর্ভজাত শিশু হিক্কা তুলে, শ্বাস নেয়, গন্ধ অনুভব করে, হাই তোলে ও পা নাড়ায়।