মেইন ম্যেনু

গর্ভধারণে নারীদের স্মৃতিশক্তি কমে যায়?

অনেক নারীই গর্ভাবস্থায় এবং সন্তান জন্মদানের পর বেশ লম্বা একটা সময় সম্পর্কে বলে থাকেন, এই সময়টায় তাদের অনেক কিছুই মনে থাকছে না। হয়তো জরুরি কোনো একটা কাজ করার কথা। কিন্তু করতে ভুলে গেছেন। অথবা কাউকে কিছু বলার ছিল। অথচ তার সাথে দেখা হলেও কথাটা বলার কথা আর মনেই নেই।

অনেকের মতে এটা একটা ভুল ধারণা। কারণ এই সময়টায় সন্তানের চিন্তায় তারা এত ব্যস্ত থাকেন যে অন্য কিছু মনে থাকে না। অনেকে আবার ভাবেন গর্ভধারণের ফলে নারীদের স্মৃতিশক্তি কমতে থাকে।

কিন্তু এর কোনোটিই ঠিক নয়। গর্ভবতী নারীর এ ধরণের মনভোলা আচরণের পেছনে রয়েছে বৈজ্ঞানিক যুক্তি। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, সন্তানকে যেন বেশি সময় দিতে পারেন এবং সন্তানের সঙ্গে দৃঢ় বন্ধন গড়ে তোলা সম্ভব হয়, সেজন্য গর্ভাবস্থায় নারীদেহে বিশেষ পরিবর্তন আসে। আর এর ফলেই তারা সন্তান ছাড়া আশপাশের অনেক কিছুই ভুলে যান।

স্পেনের ইউনিভার্সিতাত অটোনমা ডি বার্সেলোনা এবং নেদারল্যান্ডসের লেইডেন ইউনিভার্সিটি’র গবেষকদের যৌথভাবে পরিচালিত এক গবেষণার জন্য গর্ভধারণের আগে, সন্তান জন্মদানের পর পর এবং এর দু’বছর পর ২৫ জন প্রথমবারের মতো মা হওয়া নারীর মস্তিষ্কের স্ক্যান পর্যবেক্ষণ করেন।

এরপর স্ক্যান থেকে পাওয়া তথ্য ১৯ জন প্রথমবারের মতো হওয়া বাবা, ১৭ জন সন্তানহীন পুরুষ এবং ২০ জন এমন নারীর মস্তিষ্কের সঙ্গে মিলিয়ে দেখেন যারা কখনো সন্তান জন্ম দেননি তাদের সঙ্গে।

গবেষণায় দেখা যায়, গর্ভাবস্থার নয়টা মাসে একজন নারীর মস্তিষ্কে ব্যাপক পরিবর্তন আসে। গ্রে ম্যাটার নামক টিস্যু, যার মধ্যে মস্তিষ্কের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কোষ এবং নিউরাল সংযোগ থাকে, সেই গ্রে ম্যাটারের পরিমাণ নতুন মায়েদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমে যায় এবং মস্তিষ্কে এই টিস্যুর এমন অবস্থা শিশু জন্মের পর প্রায় দু’বছর পর্যন্ত থাকে।

তবে মস্তিষ্কের সব জায়গার গ্রে ম্যাটার কমে না। সামাজিক যোগাযোগ স্থাপনের জন্য অন্য ব্যক্তি সম্পর্কে চিন্তা ও অনুভূতি তৈরিতে যে অংশগুলো কাজ করে শুধু সেসব অংশের গ্রে ম্যাটার কমে যায় এই সময়টায়।

গবেষকদের মতে, মায়েরা যেন আশপাশের মানুষের প্রতি মনোযোগ কমিয়ে নিজের সন্তানের দিকে বেশি খেয়াল দিতে পারেন এবং এ সময়টায় যেন সন্তানের সঙ্গে মায়ের আত্মিক বন্ধন তৈরি হয়, সেজন্যই গর্ভাবস্থা থেকে শুরু করে শিশু জন্মের দু’বছর পর্যন্ত মস্তিষ্কের অবস্থা এমন থাকে।