মেইন ম্যেনু

গাইবান্ধা ও টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৮

গাইবান্ধা ও টাঙ্গাইলে সোমবার সড়ক দুর্ঘটনায় ৮ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক যাত্রী।

এরমধ্যে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাটে যাত্রীবাহী দু’বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন দু’বাসের অর্ধশতাধিক যাত্রী।

অপরদিকে ঢাকা-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে পৃথক তিনটি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত হয়েছেন। আর এসব ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ২ জন।

গাইবান্ধা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাট আরভি কোল্ড স্টোর সংলগ্ন এলাকায় সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টার যাত্রীবাহী দু’বাসের সংঘর্ষে দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তিনি হলেন— কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট এলাকার বক্কর মিয়ার ছেলে আরিফুর রহমান (৩৫)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রংপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী আদর এন্টারপ্রাইজের একটি বাস ধাপেরহাট আরভি কোল্ড স্টোর এলাকায় পৌঁছলে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা আলিফ লাইন নামের অপর একটি রংপুরগামী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই চারজন ও পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একজন নিহত হন। এছাড়া দু’বাসে থাকা কমপক্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী আহত হন।

ধাপেরহাট পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মোস্তাফিজুর রহমান দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আহতদের উদ্ধার করে পীরগঞ্জ ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে, এ ঘটনার পর রংপুর-ঢাকা মহাসড়কে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে যাত্রী সাধারণ চরম দুর্ভোগে পড়েন। পরে ফায়ার সার্ভিস ও হাইওয়ে পুলিশ এসে উদ্ধার তৎপরতা চালালে সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফুয়াদ লোহানী জানান, নিহতদের পরিচয় শনাক্তে চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এছাড়া দুর্ঘটনা কবলিত বাস দুটি উদ্ধার করা হয়েছে।

অপরদিকে টাঙ্গাইল প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সোমবার ঢাকা-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার ডুবাইল, বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপাড়ের কালিহাতী উপজেলার সল্লা ও ভাবলা নামক স্থানে ৩টি দুর্ঘটনা ঘটে।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আছাবুর রহমান জানান, সোমবার বিকেল পৌনে ৪টার দিকে ঢাকা-বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব মহাসড়কের ভূঞাপুর লিংক রোডের নিকট রাজাবাড়ি নামক স্থানে উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকাগামী একটি মাইক্রোবাসের সাথে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাস চালক সিরাগঞ্জের একডালা গ্রামের রফিকুল ইসলাম (৩০) মারা যায়।

এর আগে দুপুরে একই মহাসড়কের কালিহাতী উপজেলার সল্লা নামক স্থানে বাস চাপায় চায়না বেগম (৬৫) নামের এক পথচারী নিহত হয়। ওই নারী নিজ বাড়ি থেকে তার মেয়ের বাড়ি যাচ্ছিলেন। ঢাকা থেকে পাবনাগামী একটি যাত্রীবাহী বাস তাকে চাপা দিয়ে চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। চায়না বেগম কালিহাতী উপজেলার দশকিয়া ইউনিয়নের উত্তরপাড়া গ্রামের ভোলা মন্ডলের স্ত্রী।

অন্যদিকে, আজ দুপুর দেড়টার দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের দেলদুয়ার উপজেলার ডুবাইল এলাকায় মাইক্রোবাসের চাপায় এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়। এ ঘটনায় মাইক্রোবাসের দুজন আহত হয়।

দেলদুয়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোশারফ হোসেন জানান, ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গগামী একটি মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো চা ১৫-৭৩৩২) মহাসড়কের ওই স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মোটরসাইকেলকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন। এ সময় আহত হয় মাইক্রোবাসের আরও দুই যাত্রী। আহতদের উদ্ধার করে জামুর্কী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।