মেইন ম্যেনু

গাবতলীতে তাণ্ডবকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দুই চালকের সাজার প্রতিবাদে পরিবহন ধর্মঘট চলাকালে রাজধানীর গাবতলী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সংঘটিত ঘটনার জন্য দায়ী শ্রমিকদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

বুধবার দুপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা (শ্রমিকরা) পুলিশের র‍্যাকার ভেঙে ফেলেছে, বক্স ভেঙে ফেলেছে। আজকে একটা জিপের ওপর আক্রমণ করতে গিয়েছিল, এ সময় একজন শ্রমিক আহত হয়েছেন। এটা আপনারা দেখেছেন। আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী চরম ধৈর্যের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা করছে। আমরা শেষ পর্যন্ত দেখব, তারপর যা করার করব।’

এর আগে মন্ত্রী ধর্মঘট প্রত্যাহারের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ধর্মঘট চলাকালে মঙ্গলবার ও বুধবার বিভিন্ন সময়ে দফায় দফায় শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গতকাল একটি টেলিভিশন চ্যানেলের গাড়ি ছাড়াও কিছু যানবাহন ভাঙচুর করা হয়। রাতে শ্রমিকরা একটি পুলিশ বক্স ও র‍্যাকারে আগুন দেয়। আজ সকালেও ভাঙচুর করে শ্রমিকরা। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট মারে। পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে পুলিশও টিয়ার শেল নিক্ষেপ ও শ্রমিকদের লাঠিপেটা করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় শাহ আলম নামে এক শ্রমিক গুরুতর আহত হন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বুধবার সকালেও গাবতলী এলাকার র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) ও পুলিশ রাস্তায় নামে। এ সময় আতঙ্কে দোকানপাট বন্ধ করে দেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। পুলিশের বেশ কিছু সদস্য সুসজ্জিত হয়ে গাবতলী বাস টার্মিনালে প্রধান সড়ক ঘুরে আমিনবাজার সেতু পর্যন্ত সড়ক টহল দেয়।

সড়ক দুর্ঘটনায় চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদ, এটিএন নিউজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হওয়ার মামলায় গত ২২ ফেব্রুয়ারি চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স পরিবহনের বাসচালক জামির হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রথমে চুয়াডাঙ্গা ও পরে যশোর বিভাগে ধর্মঘট শুরু করেন শ্রমিকরা।

এ ধর্মঘট চলাকালেই সাভারের ট্রাকচালক মীর হোসেন মিরুকে একটি হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ডাদেশ দেওয়া হয়। তারপর কোনো ধরনের নোটিশ ছাড়াই গতকাল মঙ্গলবার থেকে সারা দেশে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করেন পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা।

২০১১ সালের ১৩ আগস্ট ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে মানিকগঞ্জের জোকা এলাকায় বিপরীতগামী যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় একটি মাইক্রোবাসের। এতে তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হন। এ দুর্ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করে।

সাভারের ঘটনায় দায়ের করা মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জানিয়েছেন, মৃত্যুদণ্ড হওয়া ট্রাকচালক মীর হোসেনের বাড়ি এবং নিহতের বাড়ি একই এলাকায়। ঘটনার দিন নিহতের বাড়ির সামনের পারিবারিক রাস্তা দিয়ে ট্রাকে করে মাটি নিয়ে যাচ্ছিলেন ট্রাকচালক মীর হোসেন।

বেলা ১১টা ৩০ মিনিটের দিকে ট্রাকের সামনে এসে দাঁড়ান খোদেজা ও তাঁর স্বামী নুরু গাজী। ওই সময় তাঁরা তাঁদের পারিবারিক রাস্তা দিয়ে মাটিভর্তি ট্রাক চলাচলে বাধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ট্রাকচালক মীর হোসেন তাঁদের ওপর দিয়ে ট্রাক চালিয়ে দেন। এতে ঘটনাস্থলেই খোদেজার মৃত্যু হয়। স্বামী লাফ দিয়ে সরে গিয়ে প্রাণে বেঁচে যান।

তাই এটা কোনো দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু ছিল না। ছিল পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। মামলার অভিযোগপত্র হয় পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড হিসেবে দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায়। ৩০২ ধারায় অভিযোগপত্র হওয়ার পরও আসামিপক্ষ দুর্ঘটনা দাবি করে উচ্চ আদালতে যায়নি বলেও জানান আইনজীবী।