মেইন ম্যেনু

গাড়ির জ্বালানী খরচ বাঁচাতে এখন চীনে বাড়ছে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার

গাড়ির জ্বালানী খরচ বাঁচাতে এখন সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার। আর সে কারণেই বৈদ্যুতিক গাড়ি তৈরিতেই এখন বেশি মনযোগী হচ্ছে গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।শেষ কয়েক বছরে বিশ্বের অন্যান্য দেশের পাশাপাশি চীনেও বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার লক্ষনীয় হারে বেড়েছে বলে জানায় রয়টার্স। চলতি বছরের ১৩ মার্চ দেশটির শিল্পমন্ত্রী জানান, ২০১৪ সালের তুলনায় এ বছর চীনে বৈদ্যুতিক গাড়ির উৎপাদন এবং বিক্রি দ্বিগুণ হবে।

২০১৫ সাল থেকে দেশটিতে বেশ ভালোই জনপ্রিয়তা পাচ্ছে বৈদ্যুতিক গাড়িগুলো। চীনের শিল্প ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রধান মিয়াও উই জানিয়েছেন, ২০১৫ সালেই তিন লাখেরও বেশি বৈদ্যুতিক গাড়ি বিক্রি করা হয়েছে। ১৩ মার্চ চীনের বার্ষিক পার্লামেন্টারি অধিবেশনে এই তথ্য উপস্থাপন করেন তিনি।দেশটিতে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার নিয়ে কিছুটা সমস্যাও রয়েছে। বৈদ্যুতিক গাড়ির জন্য খুব বেশি চার্জিং স্টেশন নেই। মিয়াও জানান, চীনে বৈদ্যুতিক গাড়ির জন্য দ্রুতগতিতে আরও বেশি চার্জিং স্টেশন স্থাপন করা উচিত। সেইসঙ্গে গাড়ির উপর নির্ভরতা বাড়াতে মাইলেজ এবং গাড়ির ব্যাটারির আয়ুকাল বৃদ্ধির জন্য আরও উন্নতি দরকার।

২০১৫ সালের অক্টোবরে জানা যায়, চীনে উৎপাদন শুরু করতে পারে বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেসলা। চীনা বাজারের জন্য এই পদক্ষেপ নিতে চান প্রতিষ্ঠানটির প্রধান ইলন মাস্ক।চীনে গাড়ি উৎপাদন করে স্থানীয় বাজারে ছাড়ার উদ্দেশ্যে দেশটির সরকারের সঙ্গে ইতোমধ্যে আলোচনা চলছে বলে সে সময় জানান তিনি। আর এর ফলে, টেসলা গাড়ির মূল্য এক-তৃতীয়াংশ কমে যাবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।