মেইন ম্যেনু

গায়ে আগুন লাগিয়ে অভিনেত্রীর মৃত্যু!

একের পর এক আত্মহত্যা। এবার টলিউড পাড়ায় উঠতি নায়িকা পূজা আইচ। শ্বশুড় বাড়ির মানসিক ও শারীরিক অত্যাচারে এমন পথ বেছে নিয়েছেন অভিনেত্রী। তবে আত্মহননের এই পথ দেশ-বিদেশের বহু তারকা বেছে নিয়েছেন নানা সময়ে।

পাহাড়-সমান প্রত্যাশার চাপ, হতাশা, ব্যর্থতা, যন্ত্রণা বা সামাজিক সমস্যা- নানা কারণে নিজেকে শেষ করে দিয়েই তারকারা দেখতে চেয়েছেন মুক্তির মুখ। কিন্তু এটাই কি সমাধান কি বলছে টলিউড পাড়া অন্য অভিনেতা-অভিনেত্রীরা?

শ্রীলেখা মিত্র : যেহেতু বাকি প্রোফেশনের থেকে এই পেশায় অনেক বেশি স্ট্রাগল করতে হয়। তাই অনেক সময় অভিনেত্রী-অভিনেত্রীরা ডিপ্রেশনের শিকার হয়ে পারেন। আমার মনে হয়, এই কারণে প্রত্যেকের কাউন্সিলিংয়ের প্রয়োজন।

তবে পূজা প্রসঙ্গে শ্রীলেখা বলেন, যেকোনো মৃত্যুই খুব দুঃখজনক। তবে এই মুহূর্তে ঠিক চিনতে পারছি না পূজাকে। তবে দেখলে হয়ত চিনতে পারব। কিন্তু একটা কথা, মৃত্যু কখনো কোনো কিছুর সমাধান হতে পারেনা।

অরুনিমা ঘোষ : আত্মহত্যা একটা ভীষণ ভুল পথ। আজকাল আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে সুইসাইডের প্রবণতা অনেক বেশি বেড়ে গিয়েছে। এর কারণ হিসাবে আমার মনে হয় ধৈর্যের অভাব। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যে সমস্যা গুলি রয়েছে তা আগেও ছিল। কিন্তু নতুন জেনারেশনের মধ্যে সহনশীলতার অভাব রয়েছে। তার ফলেই হয়ত মনটা বারবার ঘটে চলেছে।

এক্ষেত্রে আমার মনে হয়, খোলাখুলি আলোচনা করার প্রয়োজন রয়েছে বাবা-মায়ের সঙ্গে, বন্ধুর সঙ্গে। দরকার হলে সাইক্রিয়াটিক দেখাও। কিন্তু জীবন যুদ্ধে থেকে পালিয়ে জেতা যায় না।

গত বৃহস্পতিবার গায়ে আগুন দিয়েছেন টলিউডের উঠতি অভিনেত্রী পুজা আইচ। সোমবার রাতে এসএসকেএম হাসপাতালে মৃত্যু হয় পুজার। পুজার বাবার দাবি, “মেয়ের উপর মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার করা হত। সেটা সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে পুজা”।