মেইন ম্যেনু

গুলশান হামলায় মর্মাহত ভারতের রাষ্ট্রপতি

রাজধানী ঢাকায় গুলশানের অভিজাত হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে শুক্রবার রাতে সন্ত্রাসী হামলার সংবাদে গভীরভাবে মর্মাহত হওয়ার কথা জানিয়েছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি।

একই সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ওই রেস্টুরেন্ট কমান্ডো অভিযান চালিয়ে বিদেশিসহ বেশ কয়েকজন জিম্মিকে উদ্ধার করায় স্বস্তির কথাও বলেছেন তিনি।

শনিবার (২ জুলাই) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অ্যাডভোকেটের কাছে পাঠানো এক বার্তায় বর্বর এ সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতের খবরে গভীরভাবে ব্যথিত হওয়ার কথাও জানান ভারতের রাষ্ট্রপতি।

প্রণব মুখার্জি বলেন, ‘ভারত সব ধরনের সন্ত্রাস এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানায়। ভারত বিশ্বাস করে, বিচারবোধহীন এ ধরনের সন্ত্রাসের কোনো যুক্তি থাকতে পারে না।’

বার্তায় প্রণব মুখার্জি আরও বলেন, ‘কঠিন এ সময়ে বাংলাদেশের জনগণের পাশে আছে ভারত। বাংলাদেশের জনগণের কষ্টের সমব্যথীও ভারতের মানুষ।’

সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করে ভারতের রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যরা যেন এ শোক সামলে উঠতে পারেন, সে প্রার্থনা করছি।’ একই সঙ্গে আহতদের দ্রুত আরোগ্যও কামনা করেন প্রণব মুখার্জি।

গত শুক্রবার রাতে গুলশান ২ নম্বরের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা চালায় একদল অস্ত্রধারী জঙ্গি। এরপর তারা জিম্মি করে দেশি-বিদেশি অন্তত ৩৩ জনকে।

প্রায় ১২ ঘণ্টা পর কমান্ডো অভিযান চালিয়ে ওই রেস্তোরাঁর নিয়ন্ত্রণ নেয় সশস্ত্রবাহিনী। ১৩ জন জিম্মিকে জীবিত উদ্ধার করা হলেও ২০ জনের লাশ পাওয়া যায় জবাই করা অবস্থায়। এদের মধ্যে তিন জন বাংলাদেশিও রয়েছেন।

ওই রেস্টুরেন্টে নিহত ১৭ বিদেশি নাগরিকের মধ্যে ৭ জন জাপানের নাগরিক। তাদের মধ্যে ৬ জন বাংলাদেশ মেট্রোরেল প্রকল্পে কাজ করতেন।