মেইন ম্যেনু

গ্যাস বিস্ফোরণে দগ্ধ ৫ : বড় ভাইয়ের দেড় ঘণ্টা পর মারা গেল ছোটটাও

রাজধানীর উত্তরায় গ্যাসলাইনের বিস্ফোরণে একই পরিবারের দগ্ধ পাঁচজনের মধ্যে বড় ছেলে সালিন বিন নেওয়াজের (১৫) মৃত্যুর এক ঘণ্টা পরই মারা গেছে তার ছোট ভাইও। ছোট ভাই জারান বিন নেওয়াজও (১৪ মাস) ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিল।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মারা যায় জারান। এর আগে ৫টার দিকে সালিন বিন নেয়ার মারা যায়। তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ এসআই মোজাম্মেল হক।

তিনি জানান, সালিন বিন নেওয়াজ নামের ওই কিশোরের শরীরের ৮৮ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। সালিন উত্তরা রাজউক স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র। পরিবারের বড় সন্তানও সে। সবচেয়ে ছোট জারানের পুড়েছিল ৭৪ শতাংশ।

এর আগে ভোরে উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরের (রোড নম্বর-০৩) ৮ নম্বর বাড়ির সপ্তম তলায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এসময় নারী-শিশুসহ একই পরিবারের পাঁচজন দগ্ধ হন। এরা হলেন- গৃহকর্তা মো. শাহনেওয়াজ (৫০), তার স্ত্রী সুমাইয়া খানম (৪০), তাদের ছেলে সালিন বিন নেওয়াজ (১৫) ও জারিফ (১০) এবং ১৪ মাস বয়সী ছেলে জারান।

দগ্ধদের স্বজন আবুল হাসনাত খান জানান, শুক্রবার ভোরে সুমাইয়া রান্নাঘরে গিয়ে আগুন দেখে চিৎকার করতে থাকেন। চিৎকার শুনে পরিবারের অন্য সদস্যরা সেখানে গেলে তারাও দগ্ধ হন। সালিন ছোটভাই জারানকে নিয়ে গেলে তারাও দগ্ধ হয়।