মেইন ম্যেনু

গ্রীষ্মে চুলের যত্নে

ত্বকের সঙ্গে চুলের জন্যও ক্ষতিকর গ্রীষ্মের তীব্র তাপ আর রোদের তেজ। তাই প্রয়োজন বাড়তি যত্ন। ত্বকের পাশাপাশি চুল ভালো রাখতে দরকার সঠিক যত্ন। নতুবা রোদের তাপে চুলও ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ★ নিচে গ্রীষ্মের চুলের জন্য করণীয় কিছু বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। চলুন জেনে নিই….

শ্যাম্পু করা : শুধু কি আমাদের শরীরের ত্বকই ময়লা হয়! গরমে মাথার ত্বকও ঘামে। ফলে বাইরের ধুলা খুব সহজেই চুলের গোড়ায় আটকে যায়। তাই সপ্তাহে তিন থেকে চারবার ভালোভাবে ঘষে শ্যাম্পু করতে হবে।

ডিপ কন্ডিশনিং : সূর্যের তাপে চুল রুক্ষ হয়ে যায়। তাই চুলের হারানো আর্দ্রতা ফিরিয়ে কোমল করে তুলতে প্রয়োজন ডিপ কন্ডিশনিং। তাই প্রতিবার শ্যাম্পুর পর অবশ্যই কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া সপ্তাহে ডিপ কন্ডিশনিং প্যাকও ব্যবহার করা উচিত। শ্যাম্পু করার আগে চুলে তেল দিয়ে নিলে উপকার পাওয়া যাবে।

সিরাম ব্যবহার : এই গরমে চুলে খানিকটা ‘লিভ ইন সিরাম’ বা ‘লিভ ইন কন্ডিশনার’ ছড়িয়ে দেওয়া ভালো। এ ধরনের সিরাম বা কন্ডিশনার ব্যবহারের পর ধুয়ে ফেলতে হয় না। এতে চুলের আর্দ্রতা বজায় থাকে এবং চুল ঝলমলে দেখায়।

পুষ্টিকর খাদ্যাভ্যাস : শুধু বাইরে থেকে যত্ন নিলেই চলবে না। সুন্দর চুলের জন্য চাই ভিতর থেকে যত্ন। তাই নিয়মিত ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার যেমন: সামদ্রিক মাছ, পালংশাক, ডিম ইত্যাদির পাশাপাশি প্রচুর শাকসবজি ও ফল খেতে হবে।

প্রাকৃতিকভাবেই চুল হাইলাইট করুন : এর জন্য রোদে বের হওয়ার আগে চুলে খানিকটা লেবুর রস ছড়িয়ে আঁচড়ে নিন। নিয়মিত এই প্রক্রিয়ায় রোদের তাপ লেবুর রসের সঙ্গে মিশে চুলকে হাইলাইট করবে।

হেয়ার স্প্রে এড়িয়ে চলুন : সূর্যের চাপ চুল রুক্ষ করে তোলে। তাই এই সময় চুল সেট রাখতে হেয়ার স্প্রে ব্যবহার না করাই ভালো। কারণ এর কেমিকল চুল আরও রুক্ষ করে ফেলে।