মেইন ম্যেনু

ঘরেই তৈরি করে ফেলুন দারুণ এই মোমবাতিগুলো

আগে বিদ্যুৎ চলে গেলে মোমবাতির দিকেই মানুষ প্রথমে হাত বাড়াতো। জেনারেটর এখন সবার বাড়িতেই আছে, তাই সাদা মোমবাতিও ঝট করে চোখে পড়ে না। কিন্তু সুন্দর আকৃতির অথবা সুগন্ধি মোমবাতির চল এখনো আছে শৌখিন মানুষের মাঝে। শো-পিস বা গিফট আইটেম হিসেবে তাই সেন্টেড ক্যান্ডল বা ফ্লোটিং ক্যান্ডল বেশ জনপ্রিয়। প্রিয়জনকে উপহার দিতে আপনিও তৈরি করে ফেলতে পারবেন দারুণ এই মোমবাতিগুলো। পুরনো মোমবাতির গলে যাওয়া মোম দিয়েই এগুলো তৈরি করতে পারবেন। সময়টাও লাগবে কম।

যা যা লাগবে

– পুরনো মোমবাতির গলে যাওয়া মোম অথবা সাধারণ সাদা মোমবাতি
– মোমবাতির সলতে তৈরির জন্য মোটা সুতা
– ক্রেয়ন/ মোম রঙ (যদি রঙ্গিন মোম তৈরি করতে চান)
– বিভিন্ন আকৃতির কুকি কাটার
– পার্চমেন্ট পেপার
– আপনার পছন্দের এসেনশিয়াল অয়েল
– ছোট সসপ্যান
– মজবুত কাঁচের বোল

যা করতে হবে

১) প্রথম সসপ্যানে পানি গরম করে নিন। এতে কাঁচের বোল বসিয়ে নিন। এমন কাঁচের বোল ব্যবহার করবেন যেটা উত্তাপে ফেটে যাবে না। এতে মোমবাতি বা পুরনো মোম গলিয়ে নিন। রঙ্গিন মোম তৈরির ইচ্ছে থাকলে এতে পছন্দের রঙের ক্রেয়ন দিয়ে একসাথে গলিয়ে মিশিয়ে নিন।

২) সুগন্ধি মোমবাতি তৈরি করতে চাইলে মোম একটু ঠাণ্ডা হবার পর এর ভেতরে আপনার পছন্দের এসেনশিয়াল অয়েল দিয়ে মিশিয়ে নিতে পারেন। বেশি উত্তপ্ত মোমের ভেতর দেবেন না।

৩) একটা ট্রেতে পার্চমেন্ট পেপার দিয়ে এর ওপরে কুকি কাটারগুলো রাখুন। প্রতিটা কুকি কাটারে একটা করে সলতে দিয়ে দিন। সলতে বেশ লম্বা করে দিন নয়তো মোমের ভেতরে পড়ে যাবে।

৪) এবার হাতে কাপড় পেঁচিয়ে বা বেকিং গ্লাভস পরে কুকি কাটারটাকে চেপে ধরে রাখুন এবং এর ভেতরে ঢালুন মোম।

মোমবাতিগুলো ঠাণ্ডা হতে দিন। ঠাণ্ডা হয়ে গেলে কুকি কাটার থেকে বের করে নিতে পারেন বা ইচ্ছে করলে ওর ভেতরে রেখেও দিতে পারেন। এবার নিজের বাড়িতেই সাজিয়ে রাখতে পারেন বাহারি এসব মোমবাতি। উপহার দিতেও এগুলো দারুণ। কখন কার কাজে লেগে যায় আপনি নিজেও বলতে পারবেন না।