মেইন ম্যেনু

ঘরে বসে ঘি তৈরি করবেন যেভাবে

ঘরে তৈরি ঘি’র রয়েছে নিজস্ব স্বাদ ও গঠন। এটা জানা বিষয় যে ঘি’র রয়েছে প্রচুর উপকারিতা। তবে ঘরে বসে ঘি বানানো অতটা কঠিন নয় যতটা ভাবা হয়। এখানে রইল ঘরে ঘি বাননোর প্রক্রিয়াকে আরো সহজ করার কয়েকটি টিপস।

ক্রিম তৈরি করুন : একটি নিরাপদ কনটেইনারে প্রতিদিন ক্রিম সংরক্ষণ করুন। হয় উচ্চমানসম্পন্ন প্লাস্টিক বা একটি স্টিল কনটেইনারে। আপনার সেদ্ধ করা দুধ ঠাণ্ডা হওয়ার পর ক্রিমের একটি স্তর গঠিত হয়। ক্রিমের এই স্তরটি সংগ্রহ করে একটি কনটেইনারে সংরক্ষণ করুন। এরপর তা ফ্রিজে রেখে দিন।

এভাবে তিন থেকে চার দিন দুধ সেদ্ধ করার পর তৈরি হওয়া ক্রিমের স্তর দিয়ে কনটেইনারটি ভরতে থাকুন। এরপর যখন আপনার মনে হবে, ঘি তৈরির জন্য যথেষ্ট পরিমাণ ক্রিম সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করা হয়েছে তখন ঘি তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করুন।

পদ্ধতি :
– ফ্রিজ থেকে ক্রিম নামিয়ে আরো বড় একটি কড়াইয়ে রাখুন। এরপর এক থেকে দুই ঘণ্টা ধরে ক্রিমগুলোকে গলতে দিন।
– এরপর হালকা আগুনে ঘাঁটাঘাটি করে ক্রিমগুলোকে আরো ভালোমতো গলতে সহায়তা করুন। ঘি তৈরিতে কতক্ষণ সময় লাগবে তা নির্ভর করছে ক্রিমের পরিমাণের ওপর। এভাবে ঘি ক্রিমের গাঁদ থেকে আলাদা হয়ে কড়াইর তলায় জমা হতে থাকবে।
– এরপর কড়াইটি ঠাণ্ডা করে ঘিটুকু ছেঁকে নিয়ে কনটেইনারে স্থানান্তর করুন। ঘি ছাঁকার পর যে ক্রিমের গাঁদ অবশিষ্ট থাকবে তা ফেলে দিন।
– ঐতিহ্যগতভাবে সাধারণত সেন্ট্রিফিউজ পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। এই পদ্ধতিতে আরো বেশি পরিমাণ ঘি উৎপাদন করা যায়। তবে, যেহেতু এতে প্রচুর পরিমাণ সময় লাগে সেহেতু সরাসরি ক্রিম থেকেই ঘি উৎপাদন করাটাই ভালো। এ পদ্ধতিতে ঘরে বসে অল্প সময়েই যথেষ্ট পরিমাণ ঘি উৎপাদন সম্ভব।

সূত্র : টাইমস অফ ইন্ডিয়া