মেইন ম্যেনু

ঘাটাইলে সেবার নামে ক্লিনিকে চলছে বাণিজ্য

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত আইনের তোয়াক্কা না করে ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে উঠেছে পৌর শহর সহ বিভিন্ন ইউনিয়ন পর্যায়ে শতাধিক ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট ক্লিনিক। তাদের গলাকাটা বাণিজ্যের কারণে রোগীদের আর্থিক ক্ষতিসহ চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

জানা গেছে প্রকাশ্য এসব ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকগুলো বাণিজ্য চালিয়ে গেলেও প্রশাসন মাঝে মাঝে ভ্রাম্যমান আদলতের মাধ্যমে কিছু জরিমানা করে কিন্ত তাদের বিরুদ্ধে কঠিন কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। যারফলে, ঠিকমতো চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে না এলাকার হাজার হাজার সাধারণ মানুষ।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার ১টি সরকারী হাসপাতাল থাকায় ঘাটাইল শহরে গড়ে উঠেছে শতাধিক ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট ক্লিনিক। এসব প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ করা এজেন্টরা সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে যায় এবং সেবা গ্রহীতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের পাশাপাশি বিভিন্ন পরীক্ষার ভুল রিপোর্ট দেয়ারও নজির রয়েছে এসব প্রতিষ্ঠানের। দায়িত্বে অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর ঘটনাও ঘটে থাকে প্রায়ই।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট ক্লিনিকের নিয়োগ করা এজেন্টরা হাসপাতালের চিকিৎসকদের সঙ্গে লিয়াজো করে আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে ভুল বুঝিয়ে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়। অভিযোগ রয়েছে ৪০-৫০% কমিশন পাওয়ার আশায় চিকিৎসকগণ অকারণেই রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য তাদের মনোনিত ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকে পাঠায়। এছাড়া ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকগুলোর সাথে চিকিৎকদের সাথে রয়েছে মাসিক কন্ট্রাক্ট।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এ ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকগুলোতে পুরনো যন্ত্রপাতি দিয়ে চলছে পরীক্ষা-নিরীক্ষা। সাধারণ রক্ত, প্রস্রাব, ইসিজি, এক্সরে পরীক্ষা করাতেই গুণতে হচ্ছে ৮ শত থেকে হাজার টাকা। এদিকে শহরের এসব ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট ক্লিনিকগুলোর মান নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। প্রায়ই ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি রোগীদের মৃত্যু হচ্ছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ঘাটাইলের আপামর জনগণ।