মেইন ম্যেনু

ঘূর্ণীঝড়ে ভোলায় গাছ চাপায় নিহত- ১, শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত

ভোলার লালমোহন উপজেলার কচুয়াখালী গ্রামে ঘূর্ণী ঝড় কোমেন এর প্রচন্ড আঘাতে ভেঙ্গে পরা গাছের চাপায় মঞ্জুয়ারা বেগম (৫০) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। নিহত মঞ্জুয়ারা একই এলাকার ছোবাহান মোল্লার স্ত্রী।
নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে লালমোহন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ জাকির হোসেন জানান, গৃহবধূ মঞ্জুয়ারা বেগম বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ির উঠোনে বসে কাজ করছিলেন। এ সময় একটি গাছ ভেঙে তার মাথায় পড়লে ঘটনাস্থলেই সে মারা যান। তবে এ বিষয়ে কিছুই জানেননা লালমোহন থানার ওসি আকতারুজ্জামান। তিনি বলেন, এ ধরনের কোন খবর নিহতের স্বজন বা ওই এলাকার চেয়ারম্যান-মেম্বার আমাদেরকে দেন নাই।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় কোমেনের প্রভাবে ভোলার চরফ্যাশন ও মনপুরা উপজেলার মেঘনা তীরবর্তী চর ও এলাকাসমূহে ঝড়ো হাওয়া বইছে। এতে দুই উপজেলার দুর্গম এলাকার মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরে আসতে বলা হচ্ছে।চরফ্যাশন ও মনপুরা উপজেলায় থেমে থেকে ভারী বর্ষণ ও দমকা হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন উপকূলের বাসিন্দারা।

বঙ্গোপসাগরের কাছাকাছি হওয়ায় চর কুকরী-মুকরী ও ঢালচরে ঘূর্ণিঝড় কোমেনের প্রভাবে আকস্মিক জোয়ারে নিম্নঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বিধ্বস্থ হয়েছে অন্তত শতাধিক ঘরবাড়ি। উপড়ে গেছে অসংখ্য গাছপালা। নিরাপদ আশ্রয়ে ফিরে এসেছে শত শত মাছধরা নৌকা ও ট্রলার।ঘুর্ণিঝড় মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে স্থানীয় প্রশাসন, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলোর কর্মীরা।