মেইন ম্যেনু

চট্টগ্রামে বাংলাদেশ ও দ. আফ্রিকার ক্রিকেটারদের ঈদ

সমুদ্র আর সবুজ প্রকৃতির শহর বন্দরনগরী চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত পবিত্র ঈদ উদ্যাপন করছেন বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যরা। শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায় নগরীর দামপাড়া পুলিশ লাইন মাঠে উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে পবিত্র ঈদের নামাজ আদায় করেন বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ আফ্রিকার ১৪ জন মুসলিম ক্রিকেটার। বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে একমাত্র তামিম ইকবাল ছাড়া ১১ জন মুসলিম ক্রিকেটারের বাড়ি চট্টগ্রামের বাইরে দেশের বিভিন্ন জেলায়। তারা এবারই প্রথম চট্টগ্রামে ঈদ উদ্যাপন করছেন। ভিন্ন ধর্মের হলেও ক্রিকেটার সৌম্য সরকার, লিটন কুমার দাশ, কোচসহ অন্যানরাও সামিল হয়েছে এই ঈদ আনন্দে। এ ছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকা দলের মধ্যে রয়েছে তিনজন মুসলিম ক্রিকেটার ৭ জন কর্মকর্তা। তারাও প্রথমবারের মত বাংলাদেশ তথা চট্টগ্রামে ঈদ উদযাপন করছেন।

ওয়ানডে’র সিরিজ নির্ধারনী ম্যাচ এবং একটি টেস্ট ম্যাচে অংশ নিতে গত ১৩ জুলাই থেকে চট্টগ্রামের পাঁচ তারকা হোটেল রেডিসনে অবস্থান করছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল এবং সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দল। ঈদের পর পরই টেস্ট সিরিজ শুরুর নির্ধারিত সূচি থাকায় ঈদ উপলক্ষ্যে টেস্ট দলে থাকা কোন ক্রিকেটারই ছুটি পাচ্ছেন না। দুই দলের সব ক্রিকেটারদের টিম হোটেল রেডিসনেই থাকতে হচ্ছে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আবদুল জলিল মন্ডল জানিয়েছেন ঈদের দিন সকাল সাড়ে ৮টায় বাংলাদেশ দলের ১১ জন মুসলিম ক্রিকেটার এবং দক্ষিণ আফ্রিকা দলের তিনজন ক্রিকেটার ও ৭ জন কর্মকর্তা দামপাড়াস্থ পুলিশ লাইন মাঠে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেন। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও ক্রিকেটারদের সাথে ঈদের নামাজে অংশ নেন। পরে তারা একে অপরের সাথে কোলাকুলি করে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। দামপাড়া পুলিশ লাইন মাঠে ঈদের জামাতে যেসব ক্রিকেটার অংশ নিয়েছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশ দলের‍ মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, নাসির হোসেন, তাইজুল ইসলাম, জুবায়ের হোসেন, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ শহীদ এবং মোস্তাফিজুর রহমান। সাউথ আফ্রিকা দলের ক্রিকেটাররা হলেন অধিনায়ক হাশিম আমলা, ইমরান তাহির ও পারনেল।

এই ক্রিকেটারদের মধ্যে একমাত্র সৌভাগ্যবান তামিম ইকবাল। টিম হোটেল রেডিসন থেকে তামিম ইকবালের বাড়ির দুরত্ব মাত্র কয়েকশ গজ। হোটেল থেকে কয়েক কদম হাঁটলেই তামিমের বাড়ি পৌঁছানো যায়।

ঈদের নামাজ শেষে তামিমের বাড়িতে আমন্ত্রিত হয়েছেন দলের সব ক্রিকেটার। ঈদের নামাজ পড়ে এসে সব ক্রিকেটারই তামিম ইকবালের সাথে তার বাড়িতে আতিথ্য নিতে গেছেন বলে জানা গেছে।