মেইন ম্যেনু

চবিতে ফের সংঘর্ষ : অভ্যন্তরীন কোন্দল নাকি ষড়যন্ত্র?

গতকাল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে হঠাৎ ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নেতাকর্মী আহত হওয়ার ঘটনায় বিব্রত সাধারণ সবাই। সোহরাওয়ার্দী হলের সিট বণ্টনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।এতে পুলিশসহ আহত হয় বেশ কয়েকজন।

বিগত এক মাসে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররাজনীতির দুই অভিভাবকের পারস্পরিক সৌহার্দ্যতা ও আন্তরিকতায় সবাই দারুণভাবে মুগ্ধ হয়েছিল। সাধারণ ছাত্রদের মধ্যে গুঞ্জন চলছিল-‘ভালো কাজের প্রতিযোগীতায় নেমেছেন দুইজন।’ একদিকে একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জন্য সংরক্ষিত আসনের ব্যাবস্থা করেছেন,অন্যদিকে আরেকজন তদারকি করেছেন ছাত্র-ছাত্রীদের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে। মাসব্যাপী ছিল শিক্ষার্থীবান্ধব এরকম নানা কর্মসূচী। তাছাড়া দুজনের দৃঢ়তায় স্বতস্ফূর্ত ছিল নেতাকর্মীরা।

গতকা্লের অনকাঙক্ক্ষিত ঘটনাটি পারস্পরিক আন্তরিকতা নষ্টের কোন ষড়যন্ত্র কিনা, এ বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন ধরণের মন্তব্যে সরব ছিলেন শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতা ফোন করে জানতে চান-বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পরষ্পরবিরোধী বক্তব্য সত্যতার ব্যাপারে।এমনটি আশা করেননি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এটি কোন অনুপ্রবেশকারী বা বিশেষ কোন মহলের অপতৎপরতা কিনা এ ব্যাপারটি গুরুত্বের সাথে তদন্ত করার দাবী কর্মীদের। আর ক্যাম্পাসে সুষ্ঠু শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখতে উভয় পক্ষকে সর্বোচ্চ ছাড় দেয়ার আহবান জানিয়েছেন সাধারন শিক্ষা্থীরা।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা নিয়ন্ত্রন করতে অবস্থান করছে বিপুল পরিমান পুলিশ।