মেইন ম্যেনু

চাটমোহরে বিলকুড়ালিয়া ভূমিহীনদের মাসব্যাপী ধান কাটার উৎসব চলছে

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর (পাবনা) : পাবনার চাটমোহর উপজেলার আলোচিত বিলকুড়ালিয়ার বন্দোবস্ত পাওয়া খাসজমিতে শুরু হয়েছে ভূমিহীনদের মাসব্যাপী ধান কাটা উৎসব। ভূমিহীনরা প্রতিদিন তাদের জমিতে ধান কাটা ও মাড়াই করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

ধান গোলায় তুলতে পেরে তাদের চোখে মুখে হাসির ঝিলিক বইছে। ভূমিহীন উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শিক্ষক কে,এম আতাউর রহমান রানা, প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর নুরে আলম সিদ্দিকী মঞ্জু বলেন, সম্প্রতি ভূমিহীন নারী-পুরুষের সাথে ধান কেটে উৎসব উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বেগম শেহেলী লায়লা।

তারা আরো জানায়, ইতিমধ্যে ৭৭৬টি পরিবারের মাঝে বিলের খাসজমি স্থায়ী বন্দোবস্ত প্রদানে দলিল সম্পাদন হয়েছে। বাকি ৫০৪টি পরিবারের আবেদন প্রক্রিয়াধীন। তিনি ইউএনও’র কাছে কবুলয়িাত দলিল দ্রুত সম্পাদনের দাবি জানিয়েছেন।

ভূমিহীন উন্নয়ন সংস্থার প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর নুরে আলম সিদ্দিকী মঞ্জু জানান, বিলের চার পাড়ের ১ হাজার ৬শ’টি ভূমিহীন পরিবার সাড়ে ১১শ’ বিঘা খাসজমিতে এবছর ৩২টি অগভীর নলুকপ ও ৩টি গভীর নলকুপের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের বোরো রোপন করে ভূমিহীনরা। প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হলে এই জমি থেকে প্রায় ২৬ হাজার মণ ধান উৎপাদন হবে। ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় শান্তির সুবাতাস বইছে ভূমিহীন পরিবারগুলোতে। এই ধান কাটার পর আমন ধান রোপন করবেন ভূমিহীনরা।

প্রসঙ্গত: ১৯৯২ সালে বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর ইউনিয়নের নেতৃত্বে লাল পতাকা উড়িয়ে বিলকুড়ালিয়া বিলের ১ হাজার ৪শ’ বিঘা খাসজমি ভূমিগ্রাসীদের কাছ থেকে উদ্ধার করে নিজেদের দখলে নেন সংগঠিত ভূমিহীনরা। এরপর ভূমিহীন উন্নয়ন সংস্থা গঠনের মাধ্যমে সরকারের কাছ থেকে একসনা লীজ নিয়ে খাসজমি চাষাবাদ করে আসছিল তারা।

দীর্ঘ ২২ বছর ভূমিহীনদের বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সফলতা ও উচ্চ আদালতে মামলা মোকদ্দমা সরকারের পক্ষে রায় আসার পর ২০১৩ সাল থেকে নিরঙ্কুশ খাসজমি হিসেবে বিলকুড়ালিয়ার জমি স্থায়ী বন্দোবস্ত প্রক্রিয়া শুরু হয়। সফল হয় বিলকুড়ালিয়ায় ভূমিহীনদের খাসজমির আন্দোলন।