মেইন ম্যেনু

চার সেঞ্চুরির পর পেসারদের দাপটে চালকের আসনে অস্ট্রেলিয়া

জো বার্নস, উমসান খাজার পর সেঞ্চুরি পেয়েছেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও অ্যাডাম ভোজেসও। চার সেঞ্চুরিতে বিশাল সংগ্রহ গড়া অস্ট্রেলিয়া মেলবোর্নে দ্বিতীয় টেস্টে চেপে ধরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে।

৫৫১ রানের বিশাল স্কোরের নীচে চাপা পড়ার পর মাত্র ৯১ রান তুলতেই ৬ উইকেট হারিয়ে বসেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসের চেয়ে এখনও ৪৬০ রান পিছিয়ে ক্যারিবীয়রা। হাতে আছে আর মাত্র ৪টি উইকেট।

বক্সিং ডে টেস্টের প্রথম দিনই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। তিন উইকেট হারিয়ে প্রথমদিনই তারা তুলে নিয়েছিল ৩৪৫ রান। জোড়া সেঞ্চুরি করেছিলেন ওপেনার জো বার্নস ও টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান উসমান খাজা।

তিন উইকেটে ৩৪৫ রান নিয়ে দ্বিতীয়দিন খেলতে নামেন স্টিভেন স্মিথ আর অ্যাডাম ভোজেস। ৩২ রানে ক্রিজে ছিলেন স্মিথ আর ১০ রানে ছিলেন ভোজেস। দ্বিতীয় দিন এই দু’জনকে আউটই করতে পারলো না ক্যারিবীয় বোলাররা। দু’জনই তুলে নিলেন সেঞ্চুরি। গড়েন অপরাজিত ২২৩ রানের জুটি।

ক্যারিয়ারে চতুর্থ সেঞ্চুরি তুলে নেয়ার পর ভোজেস অপরাজিত ছিলেন ১০৬ রানে। আর ক্যারিয়ারে ১৩তম সেঞ্চুরির পর ১৩৪ রানে অপরাজিত থাকেন স্টিভেন স্মিথ। শেষ পর্যন্ত ১৩৫ ওভার ব্যাট করে ৩ উইকেট হারিয়ে ৫৫১ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেন অসি অধিনায়ক স্মিথ।

টেস্টে এ নিয়ে তৃতীয়বার একই ইনিংসে প্রথম পাঁচ ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে চারটি শতক দেখল ক্রিকেট বিশ্ব। এর আগে পাকিস্তান ও ভারত বাংলাদেশের বিপক্ষে এই কৃতিত্ব দেখিয়েছিল।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ক্যারিবীয় দুই ওপেনার ক্রেইগ ব্রাফেট এবং রাজেন্দ্র চন্দ্রিকা মিলে গড়েন ৩৫ রানের জুটি। তখনও মনে হয়নি কতটা বিপর্যয়ে পড়তে পারে ক্যারিবীয়রা। দলীয় ৩৫ রানে প্রথমে আউট হন ব্রাফেট। ১৭ রান করে আউট হন তিনি। এরপর রাজেন্দ্র চন্দ্রিকা করেন ২৫ রান। পরে জার্মেইন ব্ল্যাকউড করেন সর্বোচ্চ ২৮ রান।

এছাড়া মারলন স্যামুয়েলস, দিনেশ রামদিন, এবং জ্যাসন হোল্ডার আউট হন কোন রান না করেই। অজি পেসার জেমস প্যাটিনসন, নাথান লায়ন এবং পিটার সিডল নেন ২টি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
অস্ট্রেলিয়া ১ম ইনিংস : ৫৫১/৩ ডিক্লে: (উসমান খাজা ১৪৪, বার্নস ১২৮, স্মিথ ১৩৪*, ভার্জেস ১০৬* টেইলর ২/৮৩, ক্রেইগ ১/৩১)।
ওয়েস্টইন্ডিজ ১ম ইনিংস: ৯১/৬ (জার্মেইন ব্ল্যাকউড ২৮, ক্রেইগ ব্র্যাথহোয়াইট ১৭, রাজেন্দ্র চন্দ্রিকা ২৫, জেমস প্যাটিনসন ২/৩৬, নাথান লিঁও ২/১৮, পিটার সিডল ২/১৯)