মেইন ম্যেনু

চীনে এক দোকান থেকে মাসে হাজারের বেশি সেক্স ডল বিক্রি হয়

বার্ধ্যকে স্বামীর চাহিদা মেটাতে না-পেরে এখন তাঁদের জন্য সেক্স ডল কিনছেন চীনের নারীরা। হালফিলে এটাই চীনের ট্রেন্ড। পুতুল দিয়ে স্বামীদের শরীরী চাহিদা মিটছে বলেই দাবি এই সব নারীদের।

সম্প্রতি চীনে সেক্স ডল-এর ব্যবসার রমরমা বেড়েছে। পরিভাষায় যাকে বলে ‘বিজনেস বুম’। বর্তমানে চীনে ২,০০০-এর বেশি দোকান রয়েছে যেখানে সেক্স ডল বিক্রি করা হয়।

এমনই একটি দোকানের মালিক ফেং-এর বক্তব্য, ১৯৯৮ সাল থেকে এই ধরনের খেলনা আমাদের দেশে আসতে শুরু করে। সেই সময়ে মাসে শ’খানেক পুতুল বিক্রি করতে পারলেই ভাবতাম অনেক। এখন অনায়াসেই হাজারের উপর খেলনা বিক্রি হচ্ছে। তাঁর দাবি, বছরে ১০ হাজারের বেশি পুতুল বিক্রি করেন তিনি। ফেং-ই বলছেন, এই ধরনের পুতুলের ক্রেতা অনেক ক্ষেত্রে প্রৌঢ়া এবং বৃদ্ধারা। আবার একাকীত্ব কাটাতে অনেক অল্পবয়সি পুরুষও ভিড় করছেন দোকানে।

ঝেং নামে এক ক্রেতার বক্তব্য, ৫০ বছরে পৌঁছনোর পরে আমার স্ত্রী আর যৌনতা পছন্দ করত না। কিন্তু ওর মধ্যে একটা অপরাধবোধ কাজ করত। শেষ পর্যন্ত ও-ই আমার জন্য এমন একটা পুতুল কিনে এনেছে।
লি নামে আর এক প্রৌঢ়ের স্ত্রী মারা গিয়েছেন কয়েক বছর হলো।

তিনিও একটি পুতুল কিনেছেন। অকপটে বলছেন, যৌনতার জন্য বেশ কয়েকবার ব্যবহার করেছি। কিন্তু বেশিরভাগ সময়েই আমি পুতুলটাকে স্ত্রী-র পোশাক পরিয়ে রাখি। এক কাপ চা হাতে পুতুলটার সঙ্গে বসে থাকি।