মেইন ম্যেনু

চীনে জাহাজডুবি : বিক্ষোভে নিখোঁজদের স্বজনরা

চীনের ইয়াংতজে নদীতে ঝোড়ো বাতাসে উল্টে গিয়ে ডুবে যাওয়া জাহাজের নিখোঁজ যাত্রীদের স্বজনরা বিক্ষোভ করছেন। ঘটনার প্রায় তিন দিন পার হলেও নিখোঁজদের ব্যাপারে এখনো সঠিক তথ্য দিতে না পারায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছে তাদের স্বজনরা।

হুবেই প্রদেশে ইয়াংতজে নদীর জিয়ানলি এলাকায় জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করছেন বিক্ষুব্ধ স্বজনরা। নিখোঁজদের ব্যাপারে পরিষ্কার তথ্য চাইছে তারা।

চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সিনহুয়া জানিয়েছে, সোমবার রাতে প্রমোদতরি ইস্টার্ন স্টার নামের জাহাজটি ডুবে যাওয়ার পর বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত ৬৫ জন নিহত হওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে এবং তাদের লাশও উদ্ধার করা হয়েছে।

china1

এ ঘটনায় জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে মাত্র ১৪ জন যাত্রীকে। মঙ্গলবার রাতভর উদ্ধারাভিযান চালানো হলেও কাউকে আর জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

ঝোড়ো বাতাসে উল্টে গিয়ে উপুড় হয়ে ডুবে যাওয়া জাহাজের যে অংশ (হাল) পানির ওপরে রয়েছে, সেখান থেকে কাটা হচ্ছে জাহাজটি, যাতে উদ্ধারকারীরা ভেতরে প্রবেশ করে তল্লাশি চালাতে পারেন।

কিন্তু উদ্ধারকারীদের ভারী বৃষ্টিপাতের মুখে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, খুবই দ্রুততার সঙ্গে উল্টে যাওয়ায় জাহাজের ভেতরে বাতাস আটকে থাকতে পারে, যেখানে জীবিত যাত্রীদের সন্ধান মিলতেও পারে।

বুধবার রাতভর উদ্ধারাভিযান চালিয়ে আরো ৩৯ মৃতদেহ উদ্ধার করেছে উদ্ধারকারীরা। এতে এই ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৫ জনে। আর জীবিত উদ্ধার করা গেছে মাত্র ১৪ জনকে। ৪৫৮ আরোহী নিয়ে ডুবে যাওয়া জাহাজের ৩৭৯ জন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। প্রমোদ ভ্রমণে বের হওয়া এই জাহাজের অধিকাংশ যাত্রী চীনা পর্যটক, যাদের বয়স ৫০ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে।

china1

তিন দিন পার হয়ে গেলেও চীনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা আশা করছেন, হয়তো এখনো কাউকে জীবিত অবস্থায় পাওয়া যেতে পারে।

চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেছিয়াং জিয়ানলিতে দুর্ঘটনাস্থলের পাশে অবস্থান করে উদ্ধারাভিযান পর্যবেক্ষণ করছেন। তিনি বলেছেন, ‘সময় যত গড়াচ্ছে, ততই আশা ফুরিয়ে আসছে। তবে নিখোঁজদের সন্ধানে আমরা সর্বান্তকরণে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাব।’

নিখোঁজ যাত্রীদের স্বজনরা, যাদের অনেকে নানজিংয়ে অবস্থান করছিল, তারাসহ অন্যরা জিয়ানলিতে পৌঁছে বিক্ষোভ করছেন। তবে তাদের তথ্য দেওয়ার জন্য সেখানে স্থানীয় হোটেলে তথ্যকেন্দ্র স্থাপন করেছে কেন্দ্র সরকার।
বিক্ষোভকারী স্বজনদের সঙ্গে পুলিশের কয়েক দফা ধস্তাধস্তি হয়েছে। ঘটনাস্থলে যেতে বাধা দেওয়া হলে পুলিশি ব্যারিকেড ভেঙে সেদিকে এগিয়ে যায় বিক্ষোভকারীরা।

উল্লেখ্য, ৭০ বছরের মধ্যে এটিই চীনের সবচেয়ে বড় জাহাজডুবির ঘটনা।

জাহাজডুবির কিছু তথ্য
জাহাজটি ৭৬ মিটার লম্বা। ওজন ২ হাজার ২০০ টন। চীনা ভাষায় জাহাজটির নাম ডংফংজিঝিং, ইংরেজিতে ইস্টার্ন স্টার।
জাহাজটির ৪৫৮ আরোহীর মধ্যে ৪০৫ জন যাত্রী, যার মধ্যে তিন বছরের এক শিশু বাদে সবাই প্রবীণ পর্যটক। ৪৬ জন ক্রু ও পাঁচজন ট্রাভেল এজেন্সির কর্মকর্তা ছিলেন এতে।

china

জাহাজটির মালিক চংকিং ইস্টার্ন শিপিং করপোরেশন। যাত্রীরা সাংহাইয়ের একটি ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে এটি ভাড়া নেন যাত্রীরা।

নানজিং থেকে ছেড়ে যাওয়া জাহাজটির ১ হাজার ৫০০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেওয়ার কথা ছিল।