মেইন ম্যেনু

চুক্তিতে অটোরিকশা চলাচল বন্ধে অভিযান

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যেসব মালিক অটোরিকশার ভাড়া বা জমা বেশি আদায় করছেন তাদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হয়েছে। পাশাপাশি যারা মিটার টেম্পারিং করছে তাদেরও চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি বলেন, এখনও কিছু কিছু অটোরিকশা চুক্তিতে চলাচল করছে। তার সংখ্যা সীমিত হলেও অভিযান অব্যাহত থাকবে।

বুধবার বিকেলে নগরীর মানিক মিয়া এভিনিউতে সিএনজি চালিত অটোরিকশা মিটারে চলাচল নিশ্চিতকরণে বিআরটিএ’র মোবাইল কোর্টের কার্যক্রম পরিদর্শনকালে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘মিটারে চলাচল নিশ্চিতকরণে আইনগত উদ্যোগের পাশাপাশি যাত্রীদের সচেতনতাও জরুরি বলে তিনি মত প্রকাশ করেন। মিটারে না চললে যাত্রীরা যাতে সহজে অভিযোগ করতে পারেন সে লক্ষ্যে শিগগিরই বিআরটিএ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মোবাইল নম্বর জানিয়ে দেয়া হবে।’

মন্ত্রী জানান, জানুয়ারি মাসে বিআরটিএ অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন যানবাহনের বিরুদ্ধে নানান অভিযোগে ১ হাজার ২০৫টি মামলা করেছে। ২৮৮টি যানবাহন ডাম্পিং করা ছাড়াও ৯০ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘ঢাকার পাশাপাশি চট্টগ্রাম মহানগরীতেও অভিযান চলছে এবং এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘যানজট কমিয়ে আনতে সরকার পরিবারপ্রতি গাড়ির সংখ্যা নির্দিষ্ট করে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। সড়ক পরিবহন আইনের খসড়ায় এ প্রস্তাব রাখা হয়েছে। পরিবহন খাতে শৃংখলা বিধানের পাশাপাশি ফুটপাত দখলমুক্ত করা গেলে ঢাকা মহানগরীর যানজট অনেকটাই কমানো
সম্ভব।’

তিনি মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোর ফুটপাত পুনরুদ্ধারে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন উত্তর ও দক্ষিণের মেয়রদের অনুরোধ জানান।

সড়ক নিরাপত্তা সম্পর্কিত উপকমিটির সদস্য বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম, পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) বিজয় ভূষণ পালসহ বিআরটিএ’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।