মেইন ম্যেনু

চুল পড়া রোধে বাড়তি যত্ন জেনে নিন

ঋতু পরিবর্তনের সময়ে রুক্ষ-শুষ্ক চুল, আগা ফেটে যাওয়া, চুল পড়ে যাওয়া নানা ধরনের সমস্যা হয়।

রূপচর্চাবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে চুল পড়ার সমস্যা দূর করার জন্য প্রয়োজনীয় কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়।

– হঠাৎ বৃষ্টি এই মৌসুমের বেশ সাধারণ ঘটনা। বৃষ্টিতে চুল ভিজে গেলে যত জলদি সম্ভব চুল ভালোভাবে ধুয়ে ফেলা উচিত। এতে চুলের গোড়ায় ময়লা জমে ব্যাক্টেরিয়া সৃষ্টির সম্ভাবনা থাকবে না।

– অনেকেই ভেজা চুল বেঁধে রাখেন। ভেজা চুল বেঁধে রাখার ফলে চুলের গোড়ায় ও মাথার ত্বকে ফাঙ্গাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে খুশকিও হতে পারে। আর এই দুটি সমস্যা চুল পড়ার অন্যতম কারণ। তাই চুল পড়ার সমস্যা এড়াতে ভেজা চুল বেঁধে রাখার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।

– এই মৌসুমে শরীরের ত্বকের পাশাপাশি মাথার ত্বক ও চুলও শুষ্ক হয়ে যায়। এক্ষেত্রে গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে তা দিয়ে পুরো চুল ১০ মিনিট পেঁচিয়ে রাখলে চুলের নমনীয়তা বৃদ্ধি পায়ে।

– চুলে পুষ্টি জোগাতে তেল অত্যন্ত উপকারী একটি উপাদান। আর এই মৌসুমে চুলের রুক্ষতা দূর করে চুলে পুষ্টি জোগাতে নিয়ম করে তেল দেওয়া জরুরি। বাদাম তেল, জলপাই তেল এবং নারিকেল তেল পরিমাণ মতো মিশিয়ে চুলে ও মাথার ত্বকে মালিশ করে সারারাত রেখে সকালে ধুয়ে ফেলতে হবে।

– ভেজা অবস্থায় তুলের গোড়া দুর্বল থাকে। তাই ভেজা অবস্থায় চুল আঁচড়ালে চুল বেশি ওঠে। তাই বাতাসে চুল পুরোপুরি শুকিয়ে নিয়ে এরপর চুল আঁচড়াতে হবে।

– অতিরিক্ত কেমিকল যুক্ত প্রসাধনী চুলে ব্যবহারের ফলে এই মৌসুমে চুলের পিএইচ’য়ের পরিমাণ কমে যায়। ফলে চুল রুক্ষ ও ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। তাই এই সময় আয়ুর্বেদিক শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করা উচিত।

– খুশকি দূর করতে, আগা ফাঁটা রোধে ও চুল পড়া কমাতে দারুণ উপকারী ঘৃতকুমারী পাতার রস। রাতে পাতার ভিতর থেকে জেল বের করে মাথার ত্বকে মালিশ করে সারারাত রেখে সকালে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি চুলের হারানো পিএইচ’য়ের পরিমাণ স্বাভাবিক অবস্থায় নিয়ে আসবে। তাছাড়া চুলের গোড়ায় জন্মানো ব্যাক্টেরিয়া দূর করে চুলের অন্যান্য সমস্যাও দূর করবে।

– আদা, রসুন ও পেঁয়াজ ইত্যাদির রস চুল পড়া রোধ করে চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। চুলের গোড়ায় আদা, রসুন ও পেঁয়াজের রসের মিশ্রণ মালিশ করে কিছুক্ষণ রাখতে হবে। তারপর ধুয়ে ফেললে চুল পড়ার সমস্যা কমানো সম্ভব। তাছাড়া এই উপাদানগুলো চুলে ফাংগাস ও ব্যাক্টেরিয়ার সংক্রমণও দূর করতে সাহায্য করে।

– চুল ময়লা থাকলে চুল পড়ার পরিমাণ বেড়ে যায়। আর এই মৌসুমে মাথার ত্বক তৈলাক্ত হয়ে যায়, ফলে ময়লা জমে থাকে। তাই নিয়মিত শ্যাম্পু করে চুল পরিষ্কার রাখা উচিত। এক্ষেত্রে আয়ুর্বেদিক শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার বেছে নেওয়া উচিত।