মেইন ম্যেনু

ছাগলের বিনিময়ে ৬ বছরের মেয়েকে ৫৫ বছরের বুড়োর কাছে বেচে দিল বাবা!

সামান্য ছাগলের বিনিময়ে নিজের ৬ বছরের শিশুকন্যাকে ৫৫ বছরের বুড়োর কাছে বেচে দেয়ার অভিযোগ উঠল বাবার বিরুদ্ধে!

শুধু তাই নয়, জোর করে ওই শিশুকে ওই ব্যক্তির সঙ্গে বিয়েও দেয়া হয়! বর্বরোচিত এ ঘটনাটি ঘটেছে আফগানিস্তানে। খবরটি দিয়েছে এবিপি।

সংবাদসংস্থা সূত্রে খবর, ঘারিবগোল নামে ওই শিশুটির (আসল নাম নয়) বাবা অভিযুক্ত খরিদ্দার সাঈদ আব্দুল করিমের থেকে অতীতে চাল, চা, চিনি এবং ভোজ্যতেল কিনেছিল।

কিন্তু অর্থের টানাটানিতে এবার ছাগলের বিনিময়ে নিজের দুধের শিশুকে ৫৫ বছরের আব্দুল করিমের কাছে বেচে দেয়।

মেয়েটির বাবার দাবি, আব্দুল করিম প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল যে, ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত সে ওই শিশুর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করবে না। এরপর ঘারিবগোলকে নিজের মেয়ে পরিচয় দিয়ে আব্দুল করিম ঘোর প্রদেশের ফিরোজকোহতে নিজের এক আত্মীয়ের বাড়িতে গিয়ে ওঠে।

রাতে আব্দুল করিম নিজের ঘরে ওই মেয়েটির কাছে গেলে ওই আত্মীয়ের সন্দেহ হয়। তিনি সঙ্গে সঙ্গে এক প্রতিবেশি বন্ধুকে জানান। যিনি আবার প্রদেশের নারী ও শিশু অধিকার রক্ষা সংগঠনকে ডেকে আনেন।

এরপরই আব্দুল করিমকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হয় শিশুটির বাবাও। সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে, তারা ওই শিশুর বিবাহবিচ্ছেদ করাবে।

একইসঙ্গে শিশুটির ওপর তার বাবার যাতে কোনও অধিকার না থাকে তাও নিশ্চিত করা হবে। বর্তমানে শিশুটি মায়ের সঙ্গে আলাদা থাকে।

এদিকে কয়েকদিন আগে এক ৬ বছরের কন্যাকে অপহরণ করার অভিযোগে ৬০ বছরের এক আফগান মৌলভীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। মৌলভীর দাবি, শিশুটি হলো তার বাবা-মায়ের তরফ থেকে তাকে দেয়া ‘ধর্মীয় উৎসর্গ’!

প্রসঙ্গত, আফগানিস্তানের আইন অনুসারে, মহিলারা ১৬ বছরে বিবাহযোগ্যা হয় আর পুরুষরা ১৮ বছরে।