মেইন ম্যেনু

ছাত্রদলের ওয়েবসাইট হ্যাক, ১৫ আগস্ট জন্মদিন না পালনের আহ্বান

বিএনপির সহযোগী সংগঠন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট হ্যাক করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যার পর থেকে সাইটটিতে ঢোকা যাচ্ছে না। হ্যাক করার পর ওয়েবসাইটের পেজে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্মদিন ১৫ আগস্ট পালন না করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

www.jcd-bnp.org সাইটটিতে প্রবেশ করলে কিছু লেখা দেখা যাচ্ছে।

এতে লেখা আছে-‘বাংলার নবাব ইজ ব্যাক, হ্যাকড বাই হ্যাক্সর আহমেদ।

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন নিয়ে দেশব্যাপী পুর্বের মতো সহিংসতা তৈরি না করতে ছাত্রদলের প্রতি আহ্বান-

আমরা তরুণ সমাজ সর্বদাই সহিংসতার বিরুদ্ধে। শুধু আমরা নই, বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষই বিশ্বাস করে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস হলেও যে কারো জন্মদিন হতেই পারে। কিন্তু এত বিতর্কের মাঝে সেই জন্মদিনকে নিয়ে পুরো দেশব্যাপী উৎসব চলাকালীন সময়ে বিভিন্ন সহিংসতা লক্ষ্য করতাম যাতে সাধারণ মানুষ হেনস্তার শিকার হতো। বঙ্গবন্ধু ছিলেন এই বঙ্গের ধ্রুবতারা!। রাজনৈতিক হিংসা ভুলে আজকে যদি আপনারা তাকে শ্রদ্ধা করতেন কাল অন্যরাও কিন্তু ঠিকই জিয়াউর রহমানকেও সম্মান জানানো শুরু করত।

wer

বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান একটি রাজনৈতিক দলের প্রাণশক্তি আপনারা। তাই আমরা বিশ্বাস করি, আপনারা চাইলেই আমাদের দেশের এই সহিংসতার রাজনীতি পরিবর্তন করতে পারবেন। আমরা এখনো স্বপ্ন দেখি একটি দেশের যেখানে সবাই হিংসা বিভেদ ভুলে একটি উন্নত বাংলাদেশ গড়ার…। হিংসাত্মক রাজনীতি বন্ধের শুরুটা আপনারা করেন… কথা দিলাম, শেষটা করবে এই ২০ কোটি জনগণই।’

দীর্ঘদিন ধরে কেক কেটে ১৫ আগস্ট নিজের জন্মদিন উদযাপন করে আসছেন বিএনপি চেয়ারপারসন। দেশব্যাপী নেতা-কর্মীরা তার জন্মদিন বেশ ঘটা করে পালন করে। তবে বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদৎ দিবসে খালেদা জিয়া ‘ভুয়া জন্মদিন’ পালন করছেন বলে অভিযোগ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের। তারা এই দিনে জন্মদিন পালন না করারও আহ্বান জানিয়ে আসছেন।

প্রতি বছর ১৫ আগস্টের প্রথম প্রহরে গুলশানে নিজের রাজনৈতিক কার্যালয়ে একাধিক কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন করেন খালেদা জিয়া। গত বছরও গুলশান কার্যালয়ে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে কেক কাটেন তিনি।

বিএনপির অফিসিয়াল ওয়েবসাইট অনুযায়ী, খালেদা জিয়ার জন্ম ১৯৪৫ সালের ১৫ আগস্ট। তবে তার জন্মদিন ও সাল নিয়ে নানা বিতর্ক রয়েছে।